জানুয়ারি ২৭, ২০২২

বাঙলা কাগজ

The Bangla Kagoj । সবচেয়ে বেশি দেশে, সবচেয়ে বেশি ভাষায়। বাঙলা কাগজ । আপনার কাগজ । banglakagoj.net (আমাদের কোনও জাতীয় পত্রিকা নেই)।

ভারতের বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেবার সুবর্ণ জয়ন্তী ৬ ডিসেম্বর।

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : আজ ৬ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এইদিনে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিলো ভারত। যদিও প্রথম দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিলো ভুটান। তবে এর কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানেই বাংলাদেশকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ভারত। ১৯৭১ সালের এই সময় আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে যে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছিলো, সেই প্রেক্ষাপটে ভারতের এ স্বীকৃতি অনেক বেশি তাৎপর্যপূর্ণ ছিলো।

মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশের বিপন্ন মানুষকে আশ্রয় দেওয়ার পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধাদের সব রকম সহযোগিতা করেছে এবং পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যাতে মুক্ত করা যায়, সে ব্যাপারেও দেশটির সরকার ছিলো তৎপর। সে কারণেই প্রবাসী সরকার ভারতের স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আগ্রহী ছিলেন সবচেয়ে বেশি। এই স্বীকৃতি মুক্তিযুদ্ধে এনে দিয়েছিলো বাড়তি প্রেরণা।

সেদিন ভারতের লোকসভায় দাঁড়িয়ে দেশটির তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ‘স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসে বিশাল বাধার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জনগণের সংগ্রাম এক নতুন অধ্যায় রচনা করেছে। সতর্কতারসঙ্গে বিবেচনা করার পর ভারত বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর বক্তব্য শেষ না হতেই ভারতের সংসদ সদস্যরা হর্ষধ্বনি আর ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে ফেটে পড়েন।

সেদিন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে জাতির উদ্দেশে এক ভাষণে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম মিত্ররাষ্ট্র ভারতের জওয়ানদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘ভারতের সৈন্যবাহিনীর জওয়ানরা আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বাংলাদেশের মাটি থেকে হানাদার শত্রুদের নির্মূল করার জন্য আজ যুদ্ধ করে চলেছে।’

বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ায় পাকিস্তান ভারতেরসঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। পাক-ভারত যুদ্ধের প্রেক্ষিতে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন পূর্ব পাকিস্তানে অনুষ্ঠেয় উপনির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করে। এ নির্বাচন ৭ ডিসেম্বর থেকে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো।

৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর যুদ্ধকৌশল ব্যাখ্যা করতে গিয়ে পূর্ব পাকিস্তান গভর্নরের সামরিক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী ঢাকায় বলেন, ‘আমাদের বাহিনী বর্তমান পরিস্থিতিতে পূর্ব পাকিস্তান ধরে রাখতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস। তিনি বলেন, শত্রুকে পছন্দমতো জায়গায় এনে আক্রমণ করাই আমাদের লক্ষ্য। মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি এলাকা দখল করেছে- এ দাবি শুধু ভিত্তিহীনই নয়, হাস্যকরও বটে। বরং শত্রুকে ঢুকতে দেওয়া আমাদের যুদ্ধকৌশলেরই একটা অংশ।’

নিজেদের পরাজয় ঠেকাতে পাক হানাদার বাহিনী যুদ্ধের মাঠে এবং পাকিস্তান সরকার কূটনৈতিক পর্যায়ে সর্বশক্তি দিয়ে লড়ে যাচ্ছিলো। কিন্তু যুদ্ধের মাঠের মতো কূটনৈতিক মাঠেও একের পর এক তাদের পরাজয় হচ্ছিলো। ক্রমেই যেনো পরাজয়ের গ্লানি তাদের চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলছিলো।

এদিন জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে পাক-ভারত যুদ্ধবিরতি-সংক্রান্ত মার্কিন প্রস্তাবের ওপর সোভিয়েত ইউনিয়ন দ্বিতীয় দফা ভেটো দেয়। সোভিয়েত সরকারের একজন মুখপাত্র মস্কোতে বলেন, ভারতীয় উপমহাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে সোভিয়েত ইউনিয়ন উদাসীন থাকতে পারে না। কারণ, এখানে সোভিয়েত ইউনিয়নের স্বার্থ জড়িত রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে একাত্তরের ৬ ডিসেম্বর বিস্তারিত নিবন্ধ প্রকাশ করে নিউজ উইক। ওই নিবন্ধে বলা হয়, এই সংঘাত ঠেকাতে বৃহৎ শক্তিগুলো কোনও তাৎপর্যপূর্ণ উদ্যোগ নিচ্ছে না। ৪শ কোটি ডলার খরচ করে ওয়াশিংটন ইয়াহিয়াকে রক্ষার শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কিন্তু তা যথেষ্ট ফলপ্রসূ হচ্ছে না।

এদিকে, বাংলাদেশর অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম নিউজ উইক পত্রিকাকে বলেন, ‘আমরা যে স্বাধীন হচ্ছি, তা দেখার দূরদৃষ্টি যদি ইয়াহিয়ার থাকে, তাহলে তারসঙ্গে যুদ্ধবিরতি এবং শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর নিয়ে আলোচনা হতে হবে। সেজন্য প্রথমেই তাকে শেখ মুজিবকে মুক্ত করে দিতে হবে এবং বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিতে হবে। আর এটা শান্তিপূর্ণভাবে করতে না চাইলে আমরা শেষ পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যাবো।’

রাজনীতির মাঠে যে বীরত্ব তিনি দেখাচ্ছিলেন সেই একই বীরত্বগাথা প্রতিফলিত হচ্ছিলো যুদ্ধের ময়দানে।

ওই সময় লাকসাম, আখাউড়া, চৌদ্দগ্রাম ও হিলিতে মুক্তিবাহিনী দৃঢ় অবস্থান নেয়। পাকিস্তানি বাহিনী যুদ্ধে কুলিয়ে উঠতে না পেরে পিছু হটে বিকল্প অবস্থান নেয়। রাতে আখাউড়া ও সিলেটের শমসেরনগর যৌথবাহিনীর অধিকারে আসে।

এদিন রাতে লে. জেনারেল নিয়াজি ঝিনাইদহ অবস্থান থেকে সরে এসে তার বাহিনীকে ঢাকা রক্ষার নির্দেশ দেন। সে অনুযায়ী, ঢাকার পথে পেছনে এসে মেঘনার তীরে সৈন্য সমাবেশ করার নির্দেশ দেন তিনি। কিন্তু তা আর তাদের পক্ষে করা সম্ভব হয়ে ওঠে নি। কারণ ততোক্ষণে ঢাকা-যশোর সড়ক মিত্রবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। মধুমতী অতিক্রম করে মিত্রবাহিনীর একটি দল খুলনার দিকে এবং একটি দল কুষ্টিয়ার দিকে অভিযান অব্যাহত রাখে।

Facebook Comments Box

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share
Contact us