জানুয়ারি ২৭, ২০২২

বাঙলা কাগজ

The Bangla Kagoj । সবচেয়ে বেশি দেশে, সবচেয়ে বেশি ভাষায়। বাঙলা কাগজ । আপনার কাগজ । banglakagoj.net (আমাদের কোনও জাতীয় পত্রিকা নেই)।

হিমু ও মিসির আলীর স্রষ্টা হ‌ুমায়ূন আহমেদকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা : নুহাশপল্লীতে নানা আয়োজন

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : নন্দিত কথা সাহিত্যিক হ‌ুমায়ূন আহমেদের ৭৪তম জন্মদিন আজ- ১৩ নভেম্বর (শনিবার)।

১৯৪৮ সালের এইদিনে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

তাঁর ডাক নাম ছিলো কাজল। বাবার রাখা প্রথম নাম শামসুর রহমান হলেও পরে তাঁর বাবা ছেলের নাম বদলে রাখেন হ‌ুমায়ূন আহমেদ।

১৯৭২ সালে প্রকাশিত হুমায়ূন আহমেদের প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ পাঠকমহলে এতটাই নন্দিত হয়েছিলো যে, এরপর তাঁর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয় নি।

২০১২ সালের ১৯ জুলাই মরণব্যাধি ক্যানসারের কাছে হার মানার আগে ঔপন্যাসিক, ছোটগল্পকার, গীতিকার, নাট্যকার, চলচ্চিত্র পরিচালক- প্রতিটি ক্ষেত্রেই জনপ্রিয়তার শীর্ষে ছিলেন তিনি।

এখনও তাঁর লেখা অনেক জনপ্রিয়।

রসবোধ আর অলৌকিকতার মিশেলে বাংলা কথাসাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন তিনি।

তাঁর সৃষ্টি হিমু, মিসির আলী ও বাকের ভাই চরিত্রগুলো পেয়েছে ‘অমরত্ব’। এসব চরিত্রের অসংখ্য বই রয়েছে তাঁর।

হ‌ুমায়ূন আহমেদের লেখা গানগুলো এখনও মানুষের মুখে মুখে।

হ‌ুমায়ূন আহমেদের প্রথম স্ত্রী গুলতেকিন আহমেদ ছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ও সমাজ সংস্কারক প্রিন্সিপাল ইবরাহীম খাঁর নাতনি। প্রেম করার কয়েক বছর পর ১৯৭৩ সালে তাঁরা বিয়ে করেন। এরপর ২০০৩ সালে তাঁদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়।

১৯৮০ থেকে ৯০ এর দশকে বাংলাদেশ টেলিভিশনের জন্য ধারাবাহিক এবং স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র রচনা শুরু করেন হ‌ুমায়ূন আহমেদ।

১৯৮৩ সালে তাঁর প্রথম টিভি কাহিনীচিত্র ‘প্রথম প্রহর’ বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচার শুরু হয়। তখনই বেশ জনপ্রিয়তা পান হ‌ুমায়ূন আহমেদ।

নব্বই দশকের মাঝামাঝি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণ করে লেখালেখিতে পুরো মনোযোগ দেন হ‌ুমায়ূন আহমেদ।

তাঁর টেলিভিশন ধারাবাহিকগুলোর মধ্যে ‘এইসব দিনরাত্রি’, ‘বহুব্রীহি’, ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘নক্ষত্রের রাত’, ‘অয়োময়’, ‘আজ রবিবার’, ‘নিমফুল’, ‘তারা তিনজন’ ‘মন্ত্রী মহোদয়ের আগমন, শুভেচ্ছা স্বাগতম’, ‘সবুজ সাথী’, ‘উড়ে যায় বকপঙ্খী’, ‘এই মেঘ এই রৌদ্র’ বেশ জনপ্রিয়।

বিজ্ঞাপন

হ‌ুমায়ূন আহমেদের চিত্রনাট্য ও পরিচালনার ছবিগুলোর মধ্যে ‘আগুনের পরশমনি’, ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’, ‘দুই দুয়ারী’, ‘চন্দ্রকথা’, ‘শ্যামল ছায়া’, ‘নয় নম্বর বিপদ সংকেত’, ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ দর্শক ও সমালোচকদের মন জয় করেছে।

হ‌ুমায়ূন আহমেদের লেখা ‘খেলা’, ‘অচিন বৃক্ষ’, ‘খাদক’, ‘একি কাণ্ড’, ‘একদিন হঠাৎ’, ‘অন্যভূবন’-এর মতো নাটকগুলোর আলোচিত ডায়লগ এখনও অনেকের মুখেই শোনা যায়।

বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ১৯৯৪ সালে একুশে পদক লাভ করেন তিনি।

এ ছাড়া বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৮১), জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৯৩ ও ১৯৯৪) এবং বাচসাস পুরস্কার (১৯৮৮)-সহ অসংখ্য সম্মাননা পেয়েছেন নন্দিত এই কথাসাহিত্যিক।

জাপান টেলিভিশন ‘এনএইচকে’ হ‌ুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে নির্মাণ করে ১৫ মিনিটের তথ্যচিত্র ‘হু ইজ হু ইন এশিয়া’।

নুহাশপল্লীতে নানা আয়োজন : গাজীপুরের পিরুজালী এলাকায় নুহাশপল্লীতে নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে নন্দিত কথাসাহিত্যিক হ‌ুমায়ূন আহমেদের ৭৪তম জন্মদিন। মোমবাতি প্রজ্জ্বালন, কবর জিয়ারত, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও কেক কাটার মধ্য দিয়ে লেখককে স্মরণ করছেন তাঁর পরিবার, স্বজন এবং নুহাশপল্লীর কর্মী ও ভক্তরা।

হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন উপলক্ষে শুক্রবার (১২ নভেম্বর) রাতে লেখকের সমাধিতে মোমবাতি প্রজ্জ্বালন করা হয়। আজ শনিবার (১৩ নভেম্বর) সকালে লেখকের পরিবার, নুহাশপল্লীর কর্মী, ভক্ত, পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীদের উপস্থিতিতে সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করে প্রার্থনা করা হয়। পরে লেখকের ম্যুরালের সামনে কেক কাটা হয়।

হ‌ুমায়ূনভক্ত মুহাম্মদ লিংকন বলেন, ‘ভালোবাসা ও শ্রদ্ধায় আজীবন লেখককে স্মরণ করে যাবো।’ জন্মদিন উপলক্ষে জয়দেবপুর রেলজংশন থেকে তিনি সকালে যাত্রা শুরু করেন নুহাশপল্লীর উদ্দেশে। পথে মানুষের মধ্যে ক্যানসার–সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেছেন।

এ ছাড়া রাজবাড়ি মাঠে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কেক কাটা হয়েছে।

নুহাশপল্লীর ব্যবস্থাপক সাইফুল ইসলাম বলেন, দোয়া মাহফিলসহ বরাবরের মতো নানা আনুষ্ঠানিকতায় লেখককে স্মরণ করা হয়েছে।

লেখকের স্বপ্ন ধীরে ধীরে পূরণ হচ্ছে জানিয়ে লেখকের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন বাংলা কাগজ এবং আওয়ার ডনকে বলেন, নতুন প্রজন্ম মহামারিকালে হ‌ুমায়ূন আহমেদের লেখা পাঠ করছে। তাঁরা যেভাবে তাঁর লেখার ভেতরকার রস, বোধ ও মানবিকতারসঙ্গে পরিচিত হচ্ছে, এটা বিস্ময়কর।

Facebook Comments Box

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share
Contact us