‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ বদলে দেওয়া ৩০ সংগঠনের হাতে

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ওঁরা আসলে নিজেদের জন্য নন; নন স্বার্থের তরেও। তাইতো ওঁরা এগিয়ে যান দেশের জন্য, দেশের মানুষের মঙ্গলে। এমনই দেশ ও দেশের মানুষের মঙ্গলে কাজ করে যাওয়া তরুণদের ৩০টি সংগঠনকে এবার দেওয়া হলো ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২০’।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) রাত ৮টায় ইয়াং বাংলা আয়োজিত এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে ওই ৩০ সংগঠনকে বিজয়ী ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২০’-এর ভার্চুয়াল সম্মেলন।

এবার প্রথম পর্বে সামাজিক অন্তর্ভুক্তি ক্যাটাগরিতে ১৬টি যুব সংগঠন এবং দ্বিতীয় পর্বে সমন্বিত সামাজিক উন্নয়ন ক্যাটাগরিতে ১৪টি যুব সংগঠন পেয়েছে ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’।

ডা. নুজহাত চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিআরআইয়ের (আওয়ামী লীগের গবেষণা সংস্থা- সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন) ট্রাস্টি নসরুল হামিদ বিপু।

বিজয়ীদের নাম ঘোষণার পর সজীব ওয়াজেদ জয় যুব সংগঠনগুলোকে নিয়ে বলেন, ‘আমাদের মতে, আউটস্ট্যান্ডিং সংগঠন। দেশের মানুষকে, দেশকে ও সাধারণ মানুষকে সেবা করার কাজে তাঁরা পরিশ্রম করে যাচ্ছে। প্রত্যেকবার এ সংগঠনগুলোর কার্যক্রম দেখে আমি নিজেই অনুপ্রাণিত হই।’

‘দেশের মানুষের জন্য…যাঁরা কষ্টে আছে, যাঁরা দরিদ্র শিশু, ডিজ্যাবল, তাঁদেরকে যে সেবা করে যাচ্ছে, তাঁদের জন্য আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।’

‘আমাদের দেশে কেন যেন কিছু মানুষের একটা স্বভাব আছে যে, শুধু সমস্যা…এ সমস্যা ওই সমস্যার নালিশ করা। আমাদের বাংলাদেশ, আমাদের দেশ- এ দেশে এটা ভালো হচ্ছে না, ওটা ভালো হচ্ছে না, এটা খারাপ হচ্ছে, এখানে পিছিয়ে আছি- এই নালিশ তাঁরা সারাক্ষণ করে যায়।’

‘সেখানে এই যে ১৬টি সংগঠন তাঁরা সমস্যা দেখছে, তাঁরা নিজেদের চেষ্টায় নিজেদের মেধায় নিজেদের পরিশ্রম দিয়ে ওই সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাঁরা কিন্তু কোনও বিরাট সংগঠন নয়। এই যে ছোট ছোট সংগঠন, মাত্র হয়তো একজন ব্যক্তি, হয়তো একজন যুবক গ্রামে বসে পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তাঁরা নিজের চিন্তা, ধারণা দিয়ে সমাজের মানুষকে সাহায্য করছে। সে কিন্তু ওখানে বসে শুধু নালিশ করছে না। সে পরিশ্রম করে যাচ্ছে সমস্যাটা সমাধান করতে। এটাই হচ্ছে আমাদের কাজ।’

আওয়ামী লীগের গবেষণা সংস্থা- সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)-এর তরুণদের প্রতিষ্ঠান ইয়াং বাংলা ২০১৪ সালে আত্মপ্রকাশের পর মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্লোগান ‘জয় বাংলা’র নামে চালু করে ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’।

দেশ ও নিজ সমাজের উন্নয়নে কাজ করে যাওয়া তরুণদের স্বীকৃতি দিতে এই পুরস্কার দেওয়া হয়। বিগত তিনটি আয়োজনের ধারাবাহিকতায় এবারও দেশ গঠনে কাজ করে যাওয়া তরুণদের ৬শ সংগঠন থেকে শীর্ষ ৩০ সংগঠনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

এবার জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন করে ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী তরুণদের ৬শ সংগঠন। সেসব সংগঠন থেকে বাছাই করে ৪৭টি প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত আসরের জন্য মনোনীত করা হয়। সেই ৪৭টি যুব সংগঠন থেকে সেরা ৩০টির নাম ঘোষণা করেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের ক্ষমতায়ন, যুব উন্নয়ন, দরিদ্রদের উন্নয়ন, মাদকমুক্ত সমাজ বিনির্মাণ, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখা, পরিবেশ সুরক্ষা, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদনসহ আরও বেশকিছু ক্ষেত্রে অবদানের জন্য আবেদনকারি সংগঠনগুলো থেকে বাছাই করে ৫০ সংগঠনকে রাখা হয় প্রাথমিক জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০ বিজয়ীর তালিকায়।

এবার সামাজিক অন্তর্ভুক্তি ক্যাটাগরির আওতায় ছয়টি সাব ক্যাটাগরি- নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার, প্রতিবন্ধীদের ক্ষমতায়ন, ক্ষতিগ্রস্ত ও পিছিয়ে পড়া মানুষের ক্ষমতায়ন, চরম দরিদ্রদের ক্ষমতায়ন ও যুব উন্নয়নের জন্য ১৬টি সংগঠনকে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

শিশু অধিকারে এবারের পুরস্কার পেয়েছে নাটোরের প্রতিষ্ঠান হ্যাপি নাটোর ও রাজশাহীর ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়।

চরম দরিদ্রদের ক্ষমতায়নে পুরস্কার পেয়েছে পটুয়াখালীর অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন ও সিলেটের মিজারেবল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন।

ক্ষতিগ্রস্ত ও পিছিয়ে পড়া মানুষের ক্ষমতায়নে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২০ পেয়েছে পিরোজপুরের হাতেখড়ি ফাউন্ডেশন, চট্টগ্রামের এক টাকায় শিক্ষা ও বরিশালের গুড ফিল্ম।

যুব উন্নয়নে পুরস্কার পেয়েছে রাঙামাটির উন্মেষ, চাঁদপুরের ইগনাইট ইয়ুথ ফাউন্ডেশন, চাঁদপুরের আইটেক স্কুল ও ঢাকার পজিটিভ বাংলাদেশ।

নারীর ক্ষমতায়তনে ঢাকার দেশি বলারস, বরিশালের ইয়ুথ ফর চেঞ্জ বাংলাদেশ এবার জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে।

প্রতিবন্ধীদের ক্ষমতায়নে বরিশালের সেন্টার ফর রাইটস অ্যান্ড অ্যাম্প : ডেভেলপমেন্ট অব পার্সন উইথ ডিজঅ্যাবিলিটিজ, ময়মনসিংহের বাংলাদেশ হুইল চেয়ার স্পোর্টস ফাউন্ডেশন ও হবিগঞ্জের অ্যাসোসিয়েশন ফর অটিজম অ্যান্ড সোশ্যাল ইমপ্রুভমেন্ট এবার পুরস্কার পেয়েছে।

বিজ্ঞাপন

দ্বিতীয় পর্বে সমন্বিত সামাজিক উন্নয়ন ক্যাটাগরিতে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জরুরি কার্যক্রম, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত কার্যক্রম, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও সচেতনতা কার্যক্রম, সামাজিক-সাংস্কৃতিক উদ্যোগ এবং দুর্যোগ মোকাবিলা ও ঝুঁকি হ্রাস এই ছয়টি বিষয়ে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জরুরি কার্যক্রমে পুরস্কার পেয়েছে ঢাকার ব্লাডমেন হেলথ কেয়ার, ঢাকার মাস্তুল ফাউন্ডেশন, নোয়াখালীর ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ আর্মি, চট্গ্রামের সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজান এবং ঢাকার মিশন সেইভ বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন।

পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত কার্যক্রমে পুরস্কার পেয়েছে ঢাকার প্লাস্টিক ইনিশিয়েটিভ নেটওয়ার্ক (পিআইএন) এবং ঢাকার ইয়ুথ এনভায়রনমেন্ট সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি।

স্বাস্থ্য শিক্ষা ও সচেতনতা কার্যক্রমে পুরস্কার পেয়েছে জামালপুরের সাইকিওর অর্গানাইজেশন, নাটোরের দীপ মেডিকেল সার্ভিসেস ও দীপাশা ফাউন্ডেশন।

সামাজিক-সাংস্কৃতিক উদ্যোগে পুরস্কার পেয়েছে কক্সবাজারের পহরচাঁদা আদর্শ পাঠাগার, মৌলভীবাজারের উত্তরণ যুব সংঘ ও লক্ষ্মীপুরের সিনেমা বাংলাদেশ।

দুর্যোগ মোকাবিলা ও ঝুঁকি হ্রাসে পুরস্কার পেয়েছে নোয়াখালীর ফুটস্টেপ বাংলাদেশ এবং কুড়িগ্রামের সেইফটি ম্যানেজমেন্ট ফাউন্ডেশন।

ইয়াং বাংলা জানিয়েছে, ভার্চুয়াল এই অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ীদের হাতে সনদ, ক্রেস্ট ও ল্যাপটপ পৌঁছে দেওয়া হবে।

সমাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত তরুণদের ১৩০ সংগঠনকে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। এসব সংগঠনের মধ্যে অনেকেই পরে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংগঠন থেকে কাজের স্বীকৃতি পেয়েছে।

এবারের আয়োজনে ডা. নুজহাত চৌধুরীর সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন সিআরআইয়ের ট্রাস্টি নসরুল হামিদ বিপু।

এ বিষয়ক : আমাদের মা-আমাদের বোন ও আমাদেরই কন্যা শেখ হাসিনা

৯৯৯ এ ফোন করে ধর্ষণ থেকে রক্ষা তরুণীর

৯৯৯ নম্বরে ফোন, বাঁচলো বিড়ালছানা

নারীদের সাইবার হয়রানি রোধে পুলিশের নতুন ইউনিট

পঞ্চগড়ে নারীর প্রতি বর্বরতা : মারধর করে গর্ভপাত!

স্বামীর টুইট, ভারতীয় মায়ের সন্তান কমলা দেবী হ্যারিস দক্ষিণ এশিয়ার মুখ উজ্জ্বল করলেন

সকল রাজনৈতিক দলে এক-তৃতীয়াংশ নারী সম্পৃক্তের দাবিতে মানববন্ধন

দশম শ্রেণির রিমি হলেন ভোলার ‘এক ঘণ্টার’ পুলিশ সুপার

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.