বিএনপির সমর্থন রয়েছে, এমন স্থানে মাথাচাড়া দেওয়ার চেষ্টায় জামায়াত!

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : বিএনপির সমর্থন রয়েছে, এমন স্থানে মাথাচাড়া দেওয়ার চেষ্টায় রয়েছে জামায়াত! এক্ষেত্রে নিজেদের অপকর্ম আড়াল করে দীর্ঘদিনের বন্ধু হওয়া সত্ত্বেও বিএনপির ঘাড়ে দোষ চাপাতে পারে দলটি। সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়- পুলিশ আগেভাগে জেনে ফেলায় বগুড়ায় সফল হতে পারে নি জামায়াতের ছাত্র সংগঠন শিবির। এরই অংশ হিসেবে মাথাচাড়া দেওয়ার চেষ্টায় থাকা ৮ শিবির নেতাকর্মীকে মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) রাতে গ্রেপ্তারে সমর্থ হয় পুলিশ।

সূত্রমতে, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে একটা নির্দিষ্ট সময় পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত একটা বড় সময় নিষ্ক্রিয় ছিলো- যুদ্ধাপরাধীদের দল- জামায়াত।

এর আগে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকর শুরুর আগে জামায়াত ও এর ছাত্র সংগঠন- শিবিরের নেতাকর্মীরা দেশজুড়ে ব্যাপক সহিংসতা চালায়।

ওই সময় দলটির উদ্দেশ ছিল- সরকার পতন ঘটিয়ে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকানো। কিন্তু সেটি সম্ভব না হওয়ায় এক পর্যায়ে পিছু হটে দলটি।

এক্ষেত্রে যুদ্ধাপরাধীদের রায় কার্যকর হতে থাকলে এক সময় আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে যেতে বাধ্য হয় মুক্তিযুদ্ধে বিরোধিতাকারী দল- জামায়াত।

উল্লেখ করা যেতে পারে- যুদ্ধাপরাধী তথা মানবতা বিরোধী অপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত ও রায় কার্যকর হওয়া প্রায় সকলেই জামায়াতের নেতাকর্মী।

সূত্রমতে- আওয়ামী লীগ সরকারের বড় প্রকল্পগুলোর মধ্যে এক রকম স্বপ্নের প্রকল্প- পদ্মা বহুমুখী সেতু। এ সেতুর সকল কাজ প্রায় শেষের দিকে।

এমন অবস্থায় দেশকে অস্থিতিশীল করতে এক রকম মরিয়া হয়ে উঠতে পারে জামায়াত-শিবির।

বিজ্ঞাপন

এক্ষেত্রে সাম্প্রতিককালে ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে মিশে গিয়ে সরকার পতনের চেষ্টা চালিয়েছে জামায়াত-শিবির। এমনটাই দাবি সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

এর আগে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনেও মিশে গিয়েছিলো জামায়াত-শিবির।

উদ্দেশ ছিলো- এখন পর্যন্ত বেঁচে থাকা যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানো। এক্ষেত্রে সরকার পতনের জন্য নানা নাশকতার পরিকল্পনা করেছিলো- জামায়াত-শিবির।

এ ছাড়া ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিরোধিতা করে বিএনপির সঙ্গে একাট্টা হয়ে আগুন সন্ত্রাস চালিয়েছিলো জামায়াত।

তবে এসব চেষ্টায় সফল হয় নি মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দল- জামায়াত ও এর ছাত্র সংগঠন- শিবির।

সূত্রের দাবি- এখন আবারও মাথাচাড়া দেওয়ার চেষ্টায় রয়েছে জামায়াত-শিবির।

সূত্র বলছে- কিছু স্থানে বিএনপির সমর্থন রয়েছে, এমন একটি জেলা বগুড়া থেকে নাশকতার চেষ্টার অভিযোগে ৮ শিবির নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হওয়ার পরদিন (১১ নভেম্বর- বুধবার) কিছু স্থানে বিএনপির সমর্থন রয়েছে, এমন অপর জেলা- কুমিল্লায় আওয়ামী লীগ নেতা খুন এবং বিএনপি ও জামায়াতের কিছু সমর্থন রয়েছে, এমন অন্য এক জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ভিন্ন কিছুর ইঙ্গিত বহন করতে পারে।

এমন অবস্থায় রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন- মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দল হিসেবে জামায়াতকে এখনও নিষিদ্ধ করতে না পারা আওয়ামী লীগ সরকারের এক ও একক ব্যর্থতা।

এ বিষয়ক : ৭ জঙ্গি গ্রেপ্তার

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.