স্বাস্থ্যমন্ত্রী : প্রথম লটে ৩ কোটি ভ্যাকসিন ডোজ আনা হবে

বাসস : স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন- প্রথম লটে ৩ কোটি ভ্যাকসিন ডোজ দেশে আনা হবে।

বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন- প্রথম লটে সরকার ৩ কোটি ভ্যাকসিন আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই ৩ কোটি ভ্যাকসিন ডোজ দুইবার করে প্রতি ব্যক্তিকে দেওয়া হবে।

এর ফলে প্রথমে দেড় কোটি মানুষকে দেড় কোটি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। পরে একই পরিমান ভ্যাকসিন একইভাবে ২৮ দিন পর পুনরায় দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠােনে জাহিদ মালেকের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ সরকার, দেশের খ্যাতনামা ওষুধ প্রতিষ্ঠান- বেক্সিমকো ফার্মা ও ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট’র মধ্যে অক্সফোর্ড আস্ট্রজেনেকা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আমদানি সংক্রান্ত সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

এ সময় বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সঙ্গে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান ও স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূরসহ অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সরকারের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তফা কামাল।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন- করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আমদানি প্রসঙ্গে দেশের মানুষ অনেকদিন থেকেই অপেক্ষা করছে।

‘এ চুক্তির ক্ষেত্রে দেশের বেক্সিমকো ফার্মা বড় ভূমিকা রেখেছে। বেক্সিমকো ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে সরকারের সেতুবন্ধন তৈরি করে দিয়েছে। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মার কাছে ভ্যাকসিন দিলে বেক্সিমকো ফার্মা সরকারের কাছে তা হস্তান্তর করবে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বক্তব্য শেষে বাংলাদেশ সরকার, বেক্সিমকো ফার্মা ও সিরাম ইনস্টিটিউট’র মধ্যে একটি ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা চুক্তি হয়।

এ সময় বেক্সিমকো ফার্মার পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন, এমপি ও সিরাম ইনস্টিটিউটের পক্ষে সন্দীপ মুলে উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ক : স্বাস্থ্যমন্ত্রী : কোভিডে বাংলাদেশ এখন অনেকটাই নিরাপদ

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.