৯৯৯ এ ফোন করে ধর্ষণ থেকে রক্ষা তরুণীর

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলা কাগজ; পিরোজপুর : জরুরি সহায়তার নম্বর ৯৯৯- এ ফোন করে পিরোজপুরে এক কলেজ ছাত্রী ধর্ষণ থেকে রক্ষা পেয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) ভাণ্ডারিয়া উপজেলা শহরের লক্ষ্মীপুরা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান ভাণ্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম মাকসুদুর রহমান।

এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে সোহেল মুন্সি ও ধর্ষণ চেষ্টায় সহায়তার অভিযোগে কলেজ ছাত্রীর খালা ফিরোজা বেগমকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

সোহেল (২৬) শহরের লক্ষ্মীপুরা এলাকার মফিজুর রহমান ফিরোজ মুন্সির ছেলে। আর ফিরোজা বেগম (৪৫) দক্ষিণ শিয়ালকাঠীর লিয়াকত মার্কেট এলাকার মো. রফিকুল ইসলামের স্ত্রী।

১৮ বছর বয়সি মেয়েটি ভাণ্ডারিয়া সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী।

বিজ্ঞাপন

মেয়েটি সাংবাদিকদের বলেন- মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সকালে লক্ষ্মীপুরা এলাকার হাইস্কুল সড়কে রিপন বেপারীর ভাড়াটিয়া ফিরোজা বেগমের বাসায় তাঁর (মেয়েটির) জাতীয় পরিচয়পত্রসহ কিছু কাগজপত্র আনতে যান।

ওই বাসায় প্রতিবেশি সোহেল ফিরোজা বেগমের ঘরে ঢুকে তাঁকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

এ সময় মেয়েটি কৌশলে ৯৯৯ নম্বরের ফোন করে সহায়তা চান। পরে ভাণ্ডারিয়া থানা পুলিশ গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে।

ওসি মাকসুদুর বলেন- ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে মেয়েটিকে উদ্ধার করে । এ ঘটনায় মেয়েটি বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এ বিষয়ক : ৯৯৯ নম্বরে ফোন, বাঁচল বিড়ালছানা

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.