কাউন্সিলর ইরফান সেলিম বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ এবং অসদাচরণের অভিযোগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইরফান সেলিমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) স্থানীয় সরকার বিভাগের সিটি করপোরেশন-১ শাখার এক প্রজ্ঞাপনে এ কথা জানানো হয়।

মোহাম্মদ ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহম্মেদ খান ও তাঁর স্ত্রীর ওপর হামলা অভিযোগে মামলা রয়েছে। বিদেশি মদ সেবনের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাঁকে এক বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

পাশাপাশি অবৈধ ওয়াকিটকি রাখা ও ব্যবহারের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৬ মাসের কারাদণ্ড দেন। বর্তমানে তিনি কারাগারে আছেন।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব আ ন ম ফয়জুল হক স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়- সিটি করপোরেশনের কোনও কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নৈতিক স্থলনজনিত অপরাধ ও অসদাচরণের অভিযোগে স্থানীয় সরকার ( (সিটি করপোরেশন ) আইন, ২০০৯ এর ১৩ নম্বর ধারা অনুযায়ী কার্যক্রম শুরু করা হলে ওই আইনের ধারা ১২ এর উপধারা (১) অনুযায়ী অভিযুক্ত কাউন্সিলরকে সাময়িক বরখাস্তের বিধান রয়েছে। সেই ক্ষমতাবলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদ থেকে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।

বিজ্ঞাপন

গত রোববার (২৫ অক্টোবর) রাতে স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে বাসায় ফিরছিলেন নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহম্মেদ খান।

সংসদ সদস্যের স্টিকারযুক্ত একটি গাড়ি তাঁর মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। ওই গাড়িতে ছিলেন হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান এবং তাঁর লোকজন। ওয়াসিফ নিজের পরিচয় দিয়ে গাড়িটিকে থামতে ইশারা করেন ও কথা বলতে চান। তখন তাঁকে মারধর করে রক্তাক্ত করেন ইরফান ও তাঁর লোকজন।

পরে সোমবার (২৬ অক্টোবর) সকালে ধানমণ্ডি থানায় মামলা করেন ওয়াসিফ। এরপর শুরু হয় পুলিশ ও র‍্যাবের তৎপরতা।

এ বিষয়ক : কাউন্সিলর ইরফান সেলিম আটক, ১ বছরের কারাদণ্ড, মামলা

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.