আগস্ট ৪, ২০২১

The Bangla Kagoj

আপনার কাগজ । banglakagoj.net

কাউন্সিলর ইরফান সেলিম আটক, ১ বছরের কারাদণ্ড, মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধরের পরদিন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ইরফান সেলিমকে আটক করেছে র‌্যাব। এর আগে তাঁর বাসা তল্লাশি চালায় র‌্যাবের একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় অবৈধ অস্ত্র ও মাদক রাখার দায়ে তাঁকে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

এর আগে রোববার (২৫ অক্টোবর) সন্ধ্যার ঘটনায় সোমবার (২৬ অক্টোবর) সকালে মামলা দায়ের করেছেন নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খান। এতে ইরফান সেলিমকে প্রধান আসামি করা হয়েছে।

ইরফান সেলিম ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের পুত্র।

ইরফান সেলিমকে আটকের ব্যাপারে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ গণমাধ্যমকে জানান- ইরফান ছাড়াও অভিযানে মামলার তিন নম্বর আসামী জাহিদ হোসেনকেও আটক করা হয়েছে। এর আগে ওই গাড়ির চালক মিজানুর রহমানকে আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন ধানমণ্ডি থানার পরিদর্শক রবিউল ইসলাম।

র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে- ইরফান সেলিমের বাসায় অভিযান চা‌লি‌য়ে আগ্নেয়াস্ত্র, মদ, বিয়ার ও ওয়া‌কিট‌কিসহ বিপুল নিরাপত্তা সরঞ্জাম উদ্ধার ক‌রে র‌্যাব।

সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুর ১টা থে‌কে সা‌ড়ে ৩টা পর্যন্ত চকবাজা‌রের ২৬ নম্বর দেবীদাস ঘাট লেনে ইরফানের বাসায় ওই অভিযান চালানো হয়।

অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যা‌জি‌স্ট্রেট স‌রোয়ার আলম।

এর আগে নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধরের অভিযোগে সোমবার (২৬ অক্টোবর) সকালে হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমকে আসামি করে ধানমণ্ডি থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ধানমণ্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া।
তিনি বলেন- লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধরের ঘটনায় সোমবার (২৬ অক্টোবর) সকালে মামলা হয়েছে। মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে ইরফান সেলিমকে।

বিজ্ঞাপন

এ ছাড়া প্রোটকল অফিসার এ বি সিদ্দিক দিপু, মোহাম্মদ জাহিদ ও মিজানুর রহমানের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয় আরও তিনজনকে আসামি করা হয়েছে ওই মামলায়।

লেফটেন্যান্ট ওয়াসিক ঢাকায় বিএনএস হাজী মহসীন নৌবাহিনী ঘাঁটিতে কর্মরত।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে- লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ রোববার (২৫ অক্টোবর) রাত পৌনে ৮টার দিকে তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে কলাবাগানের দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় ল্যাবএইড হাসপাতালের সামনে সংসদ সদস্যের স্টিকার লাগানো একটি কালো রঙের ল্যান্ড রোভার গাড়ি (ঢাকা মেট্রো-ঘ-১১-৫৭৩৬) পেছন থেকে তাঁর মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়।

ওয়াসিফ ও তাঁর স্ত্রী ধাক্কা সামলে মোটরসাইকেল থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে ওই গাড়ি থেকে জাহিদ, দিপু এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরও দুই-তিনজন অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে করতে নেমে আসে এবং মারধর শুরু করে।

তারা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ ও তাঁর স্ত্রীকে উঠিয়ে নেওয়ার এবং হত্যার হুমকি দেয় বলেও মামলায় অভিযোগে বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে- ঘটনাস্থলে লোকজন জড়ো হলে সংসদ সদস্যের গাড়ি ফেলে মারধরকারীরা পালিয়ে যান। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে এমপির গাড়ি ও নৌবাহিনীর কর্মকর্তার মোটরসাইকেল ধানমণ্ডি থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে এই ঘটনার পর মোবাইল ফোনে একটি ভিডিও ধারণ করেছেন এক প্রত্যক্ষদর্শী। এরই মধ্যে ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ওই ভিডিওতে দেখা গেছে- আহত নৌবাহিনীর কর্মকর্তা নিজেকে লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ বলে পরিচয় দিয়ে ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দিচ্ছেন।

নৌবাহিনীর এই কর্মকর্তাকে রক্তাক্ত মুখে বলতে শোনা যায়- তিনি পরিচয় দেওয়ার পরও তাঁকে মারধর করা হয়েছে, তাঁর স্ত্রীর গায়েও হাত দিয়েছে।

এ বিষয়ক : মন্দিরে গিয়েও রক্ষা পেলো না হত্যা মামলার আসামি, খুন

Facebook Comments Box
Call Now ButtonContact us

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share