কিছু স্থানে কুমারী পূজাসহ মহাঅষ্টমী উদযাপিত, আজ মহানবমী

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : দেশের কিছু স্থানে কুমারী পূজাসহ শনিবার (২৫ অক্টোবর) মহাঅষ্টমী উদযাপিত হয়েছে। আজ উদযাপিত হবে মহানবমী।

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলা কাগজ; মোংলা জানান- করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্য দিয়ে জাঁকজমকভাবেই উদযাপিত হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজা।

এবার মোংলার শেহলাবুনিয়ার বটতলা কেন্দ্রীয় মন্দির ও বঙ্গবন্ধু সড়কে সোনাপট্টির মন্দিরসহ ৩৩টি মন্দির-মণ্ডপে উদযাপিত হচ্ছে দুর্গাৎসব।

স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পূজা ও উৎসব পালন করছেন পূজারি ও ভক্তরা।

পূজোর প্রথমদিন ষষ্ঠী ও দ্বিতীয়দিন সপ্তমীতে প্রচণ্ড বৃষ্টি হওয়ায় উৎসবে কিছুটা ভাটা পড়ে। তবে সপ্তমীর বিকেল থেকে পূজা ও মন্দিরস্থলে ভিড় বাড়তে থাকে।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) কুমারী পূজা, অঞ্জলী ও চন্ডি পাঠসহ নানান আনুষ্ঠানিকতার মধ্যদিয়ে মহাঅষ্টমী উদযাপন করা হয় হয় মন্দির-মণ্ডপগুলোতে।

মোংলায় সবচেয়ে জাঁকজমকভাবে উদযাপন হয় সোনাপট্টির আয়োজনের দুর্গাৎসবটি। চোখের পড়ার মত আকর্ষণীয় প্রতিমা ও আলোকসজ্জা সকলের নজর কাড়ছে। তাই সবচেয়ে ভিড়ও এ পূজাস্থল জুড়ে। করোনা ও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া উপেক্ষা করে ধর্মীয় এ অনুষ্ঠানে সামিল হতে দেখা গেছে সব বয়সের মানুষকেই।

রাজধানীতে ছিল না কুমারী পূজা : নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ জানান- এবার রাজধানীতে অনুষ্ঠিত হয় নি কুমারী পূজা।

আজ মহানবমী : আজ রোববার (২৫ অক্টোবর) মহানবমী, দুর্গা মাকে প্রাণ ভরে দেখার দিন। এর আগে গতকাল (শনিবার- ২৪ অক্টোবর) সন্ধিপূজার মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে মহাঅষ্টমী।

কাল (সোমবার- ২৬ অক্টোবর) ভক্তদের কাঁদিয়ে কৈলাশে ফিরে যাবেন দুর্গতিনাশিনী।

এবার দেবী ফিরবেন গজে চড়ে, এসেছিলেন দোলায় করে।

প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে সোমবার (২৬ অক্টোবর) শেষ হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় এ উৎসব।

আজ (রোববার- ২৫ অক্টোবর) সকাল ৯ টা ৫৭ মিনিটে বিহিত পূজার মাধ্যমে পালিত হবে মহানবমী।

বিজ্ঞাপন

এই দিনই দুর্গাপূজার অন্তিমদিন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কারণ পরেরদিন কেবল বিসর্জনের পর্ব।

নবমীর রাতে উৎসবের রাত শেষ হয়। নবমী রাতে তাই মণ্ডপে মণ্ডপে বিদায়ের ঘণ্টা বাজে।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সংক্রমণ এড়াতে এ বছর বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে।

উৎসব সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো পরিহার করে সাত্ত্বিক পূজায় সীমাবদ্ধ রাখতে হবে বিধায় এবারের দুর্গোৎসবকে ‘দুর্গাপূজা’ হিসেবে অভিহিত করেছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ।

সন্ধ্যায় আরতির পরই বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে পূজামণ্ডপ।

থাকছে না সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আরতি প্রতিযোগিতা।

জনসমাগমের কারণে স্বাস্থ্যবিধি যাতে ভঙ্গ না হয় সেদিকে খেয়াল রেখেই দুর্গাপূজায় আগেই প্রসাদ বিতরণ ও বিজয়া দশমীর শোভাযাত্রা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ছাড়া মন্দিরের আশেপাশে মেলাও নিষিদ্ধ করা হয়।

এবার দেশজুড়ে ৩০ হাজার ২১৩টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

পূজার জন্য রাজধানীতে প্রস্তুত হয়েছে ২৩২টি মণ্ডপ।

গেলবার সারাদেশে মণ্ডপের সংখ্যা ছিল ৩১ হাজার ৩৯৮টি, যা তার আগের বছরের চাইতে ৪৮৩টি বেশি।

এবার মণ্ডপ কমেছে গত বছরের চাইতে ১ হাজার ১৮৫টি।

এ বিষয়ক : মহাসপ্তমী : বৃষ্টিতেই কলাবউ স্নান, নবপত্রিকা স্থাপিত মণ্ডপে

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.