প্রাথমিকে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নেবে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সরকার।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সোমবার এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে; যার মাধ্যমে ৩২ হাজার ৫৭৭ শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে প্রার্থীদের সর্বোচ্চ বয়স ৩০ বছর হিসেব করা হয়েছে গত ২৫ মার্চ।

অর্থাৎ ২৫ মার্চ পর্যন্ত যাদের বয়স ৩০ বছর, তাঁরা এই চাকরির পরীক্ষার বসায় আবেদন করতে পারবেন। তবে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত প্রার্থীর সর্বনিম্ন বয়স হতে হবে ২১ বছর।

আর মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তান এবং শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে বয়স ধরা হয়েছে গত ২৫ মার্চ পর্যন্ত ৩২ বছর।

এতোদিন এইচএসসি পাসের সনদ থাকা নারীরা প্রাথমিকের শিক্ষক হতে আবেদন করতে পারলেও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে নারী-পুরুষ উভয় প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা ধরা হয়েছে স্নাতক।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হতে পুরুষদের পাশাপাশি নারী প্রার্থীদেরও শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক করে গত বছরের এপ্রিলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৯ জারি করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞাপন

আগামী ২৫ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে শিক্ষক নিয়োগের আবেদন অনলাইনে নেওয়া শুরু হবে। ২৪ নভেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত ১১০ টাকা ফি জমা দিয়ে এই আবেদন করা যাবে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্ব খাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক’ এর শূন্য পদ এবং নতুন করে জাতীয়করণ করা বিদ্যালয়ে পিডিইপি-৪ এর আওতায় প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজস্বখাতে সৃষ্ট ‘সহকারী শিক্ষক’ পদে জাতীয় বেতন স্কেলের ত্রয়োদশ গ্রেডে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। তিন পার্বত্য জেলা- রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন না।

শিক্ষাগত যোগ্যতার ক্ষেত্রে যে কোনও স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএসহ স্নাতক বা সম্মান বা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে।

আবেদন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ১১০ টাকা।

বিজ্ঞপ্তির বিস্তারিত পাওয়া যাবে http://dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে।

এবার সারাদেশে ২৫ হাজার ৬৩০ জন প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষক এবং ৬ হাজার ৯৪৭ সহকারি শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে।

এ বিষয়ক : ১৬ দিনব্যাপী প্রাথমিকোত্তর অনলাইন জরিপ শুরু বৃহস্পতিবার

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.