আগস্ট ১, ২০২১

The Bangla Kagoj

আপনার কাগজ । banglakagoj.net

পুলিশের দাবি করা গণপিটুনির চিত্র মেলে নি সিসি ক্যামেরায়

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : সিলেট নগরের কাষ্টঘর এলাকায় গণপিটুনিতে আহত হয়ে কোতোয়ালি থানার বন্দরবাজার ফাঁড়িতে রায়হান উদ্দিন আহমদ (৩৪) নামের যুবকের মৃত্যু হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। তবে ওই এলাকায় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের স্থাপন করা ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরায় এমন কোনও গণপিটুনির চিত্র পাওয়া যায় নি।

কাষ্টঘর এলাকা সিলেট সিটি করপোরেশনের ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত। এই এলাকার পুরোটাই ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরার আওতাভুক্ত। এসব ক্যামেরার মনিটর রয়েছে ১৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের কার্যালয়ে। রোববার রাতে তাঁর কার্যালয়ে গিয়ে শনিবার (১০ অক্টোবর) রাত ১২টা থেকে রোববার (১১ অক্টোবর) সকাল ৭টা পর্যন্ত কাষ্টঘর এলাকার সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ফুটেজে কোনও গণপিটুনির দৃশ্য পাওয়া যায় নি।

এমন কী এই সময়ে কাষ্টঘর এলাকায় পুলিশের কোনও টহলও দেখা যায় নি।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল বাংলা কাগজকে বলেন- ‘আমিও সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা রাত ও সকালের ফুটেজ দেখেছি। শনিবার (১০ অক্টোবর) রাত থেকে রোববার (১১ অক্টোবর) সকাল পর্যন্ত ওই এলাকায় গণপিটুনির কোনও ঘটনা দেখা যায় নি। ফুটেজে সন্দেহজনক কিছুই চোখে পড়ে নি। আমি কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরাও এ রকম কিছু ঘটেছে বলে শুনেন নি।’

কাষ্টঘরের কয়েকজন স্থায়ী বাসিন্দা বলেছেন- তাঁরা কেউই শনিবার (১০ অক্টোবর) রাতে বা রোববার (১১ অক্টোবর) ভোরের দিকে কোনও গণপিটুনির কথা শুনেন নি। তবে রোববার (১১ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে এলাকায় পুলিশ গিয়ে জানায়- ভোরে এই এলাকায় গণপিটুনিতে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

কাষ্টঘরের বাসিন্দা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন আইনজীবী বলেন- ‘প্রায় রাতেই এই এলাকায় মাদকসেবীদের চেঁচামেচি শোনা যায়। পুলিশের বাঁশির শব্দও শোনা যায়। তবে শনিবার (১০ অক্টোবর) রাতে বা রোববার (১১ অক্টোবর) ভোরে এমন কিছুই শুনি নি। গণপিটুনির ঘটনা ঘটলে তো অন্তত কিছু শোরগোল, চিৎকার শোনা যেত। তা-ও শোনা যায় নি।’

বিজ্ঞাপন

কাষ্টঘরে গণপিটুনিতে আহত রায়হানকে বন্দরবাজার ফাঁড়ি থেকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়া।

সিসি ক্যামেরায় গণপিটুনির কোনও দৃশ্য পাওয়া যায় নি বলে তাঁকে জানালে তিনি কোনও মন্তব্য করতে রাজি হন নি। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) সৌমেন মিত্রও কোনও কথা বলতে চান নি।

তিনি শুধু বলেন- ‘আমরা তদন্ত করে দেখছি।’

সিলেট মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোতির্ময় সরকার বাংলা কাগজকে বলেন- ‘ঘটনাটির তদন্ত চলছে। তদন্তের পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা হবে।’

রায়হানের পরিবারের ভাষ্য- নগরীর নিহারীপাড়ার বাসিন্দা রায়হান রিকাবিবাজার এলাকার একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চাকরি করতেন। গত শনিবার (১০ অক্টোবর) রাতে বাসায় না ফেরায় তাঁকে খোঁজাখুঁজি করেন পরিবারের সদস্যরা। রোববার (১২ অক্টোবর) ভোরে রায়হানের পরিবারের সদস্যদের কাছে বন্দরবাজার ফাঁড়ি থেকে ফোনে জানানো হয়- রায়হান পুলিশ হেফাজতে আছেন। তাঁকে ছাড়িয়ে নিতে হলে ১০ হাজার টাকা দিতে হবে। তাঁরা এ সময় পুলিশ ফাঁড়িতে যান। তবে গিয়ে জানতে পারেন, রায়হান মারা গেছেন। পরে হাসপাতালের মর্গে গিয়ে তাঁর লাশ শনাক্ত করেন পরিবারের সদস্যরা।

এ সময় পুলিশের পক্ষ থেকে রায়হানের পরিবারকে জানানো হয়- নগরীর কাষ্টঘর এলাকায় একটি ছিনতাইয়ের ঘটনায় ধরা পড়ে গণপিটুনিতে রায়হান আহত হন। পরে তিনি মারা যান।

তবে রায়হানের পরিবার খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, কাস্টঘর এলাকায় কোনও ছিনতাই বা গণপিটুনির ঘটনা ঘটে নি। তখন পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনে রায়হানের মৃত্যুর অভিযোগ তোলা হয়।

এ বিষয়ক : কক্সবাজার থেকে পুলিশের এসপিসহ ১৩৪৭ সদস্য বদলি

Facebook Comments Box
Call Now ButtonContact us

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share