অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায় রোহিঙ্গা! তিনদিনে নিহত ৭

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলা কাগজ; উখিয়া, কক্সবাজার : অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করার জন্য কিছু রোহিঙ্গা পাহাড়ে অবস্থান করে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। অবশ্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে এসব রোহিঙ্গা ধরাও পড়ছে। পাশপাশি রোহিঙ্গারা নিজেদের মধ্যে কোন্দলে নিহতও হচ্ছে।

জানা গেছে- অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারায় কিছু রোহিঙ্গা গহীন পাহাড়ে অবস্থান করছেন। অবশ্য তাদের গ্রেপ্তারেও সমর্থ হচ্ছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এরই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) ভোরে টেকনাফের চাকমারকূল ক্যাম্প সংলগ্ন গহীন পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে নয় রোহিঙ্গাকে অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার করেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে, নিজেদের মধ্যেই অন্তঃকোন্দলেও জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গা। এক্ষেত্রে তারা মারাও যাচ্ছে।

এরই অংশ হিসেবে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’দল রোহিঙ্গার সংঘর্ষে তিনদিনে নিহত হয়েছেন সাতজন। এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ১৬ জন। গেল রবি (৪ অক্টোবর), সোম (৫ অক্টোবর) ও মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) এসব ঘটনা ঘটে।

সর্বশেষ মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রোহিঙ্গাদের মধ্যে সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন বলে বাংলা কাগজকে নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম।

বিজ্ঞাপন

নিহতদের মধ্যে গিয়াস উদ্দিন স্থানীয় মুন্না বাহিনীর প্রধান মোহাম্মদ মুন্নার বড় ভাই। নিহত অপর তিনজন এবং আহতদের নাম ও পরিচয় জানা যায় নি।

আহতদের রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকসহ উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

রফিকুল ইসলাম বলেন, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় কুতুপালং ক্যাম্প -১ এ রোহিঙ্গাদের দুটি গ্রুপ আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে চারজন নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে তিনটি গুলিবিদ্ধ এবং একটি গলাকাটা মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসেছে জানিয়ে রফিকুল বলেন, ঘটনায় আতঙ্কিত রোহিঙ্গাদের অনেকে সংঘর্ষস্থল ওই ক্যাম্প ছেড়ে অন্য ক্যাম্পে অবস্থান নিয়েছে।

এ বিষয়ক : বন্ধের পরও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থ্রিজি-ফোরজি কেন?

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.