বেগমগঞ্জে বর্বরতা : গ্রেপ্তার ৪, ভিডিও সরানোর নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

পাশাপাশি ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সরিয়ে ফেলার জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ওই ভিডিও’র একটি কপি বিটিআরসিকে সংরক্ষণ করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আর ২৮ অক্টোবর এ বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি)।

সোমবার (৫ অক্টোবর) হাইকোর্টের বিচারপতি মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ (ভার্চুয়াল) ওই আদেশ দেন।

আদেশে আরও বলা হয়েছে- ভিকটিমের পরিবারকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দিতে স্থানীয় পুলিশ সুপারকে (এসপি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনা তদন্তের জন্য স্থানীয় সরকারি কলেজের প্রিন্সিপাল, সমাজসেবা অফিসারসহ তিনজনের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করতে বলা হয়েছে। অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনারকে (এডিসি) এ বিষয়ে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতেও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এর আগে নির্যাতনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত চার আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। সোমবার (৫ অক্টোবর) দুপুরে র‌্যাব-১১’র অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খন্দকার সাইফুল আলম এ তথ্য জানিয়েছেন।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- বাদল (২০) ও দেলোয়ার বাহিনীর দেলোয়ার (২৬) এবং আবদুর রহিম ও রহমত উল্লাহ। বাদল ও দেলোয়ার এজাহারভুক্ত আসামি।

বিজ্ঞাপন

এ সময় র‌্যাব-১১’র অধিনায়ক খন্দকার সাইফুল আলম জানান- ২ সেপ্টেম্বর রাতে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করা হয়। পরে ৪ অক্টোবর (রোববার) ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। ওই নির্যাতনের ঘটনার ৩৩ দিন পরে ৯ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগী নারী।

জানা গেছে- গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে বিশেষ অভিযান চালিয়ে রোববার (৪ অক্টোবর) রাত ২টা ৩০ মিনিটে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে থানা এলাকার চিটাগাং রোড থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয় মো. দেলোয়ারকে। পরে তার দেওয়া তথ্যমতে ঢাকা জেলার কামরাঙ্গীরচর এলাকা থেকে মো. নুর হোসেন বাদলকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জানা গেছে- ঘটনার দিন রাতে দেলোয়ার বাহিনীর কয়েকজন সদস্য ভুক্তভোগী গৃহবধূর ঘরে প্রবেশ করে তাকে নির্যাতনের করে এবং সেই ভিডিও ধারণ করে। পরে ওই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে টাকা দাবি করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে- দেলোয়ার বাহিনী চাঁদাবাজি, মাদক কারবার এবং নানা রকমের সন্ত্রাসী কাজের সঙ্গে যুক্ত। দেলোয়ারের নামে দুটি হত্যা মামলাসহ আরও বেশকিছু মামলা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোববার (৪ অক্টোবর) বেগমগঞ্জ থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগী ওই নারী। মামলার এজাহারে তিনি জানান- ঘটনার দিন বাদল ও দেলোয়ারসহ বাকীরা তার স্বামীকে বেঁধে রাখে এবং তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করে তারা। এরপর গত একমাস ধরে তাঁকে ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে অনৈতিক প্রস্তাব দেয় আসামিরা। তাদের সেই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয় তারা।

এ বিষয়ক : বেগমগঞ্জে মধ্যযুগীয় বর্বরতা : উত্তাল দেশ, মানববন্ধন-বিক্ষোভ, শাস্তি দাবি

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.