মে ১২, ২০২১

Bangla Kagoj । News from Bangladesh, World and Universe at any Language

বাংলা ভাষাসহ পৃথিবির সব ভাষায় সর্বশেষ ও প্রধান খবর, বিশেষ প্রতিবেদন, সম্পাদকীয়, পাঠকমত, খেলাধুলা ও বিনোদনসহ সব প্রান্তের গুরুত্বপূর্ণ সকল খবর।

অধ্যক্ষ মাহফুজা হত্যা : দুই গৃহকর্মীর মৃত্যুদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : দেড় বছর আগে ইডেন মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মাহফুজা চৌধুরী পারভীনকে হত্যার ঘটনায় তার বাসার দুই গৃহকর্মী রিতা আক্তার ওরফে স্বপ্না ও রুমা ওরফে রেশমাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

ঢাকার ১ নম্বর দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারক আবু জাফর কামরুজ্জামান রোববার (৪ অক্টোবর) আসামিদের উপস্থিতিতে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।

হত্যার দায়ে দুই আসামিকে সর্বোচ্চ সাজার আদেশ দেওয়ার পাশাপাশি চুরির জন্য তাদের দুজনকে সাত বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড এবং ২৫ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের জেল দেওয়া হয়েছে রায়ে। তবে ফাঁসির রায় কার্যকর হয়ে গেলে কারাদণ্ড আর প্রযোজ্য হবে না।

বিচারক আবু জাফর কামরুজ্জামান তার রায়ের পর্যবেক্ষণে গৃহকর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে ছয়টি নির্দেশনা দিয়েছেন।

দুই আসামিকে সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়ার ব্যাখ্যায় তিনি বলেছেন, সর্বজন মান্য, মানুষ গড়ার কারিগর, সকলের শ্রদ্ধাভাজন ইডেন মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষকে এভাবে হত্যাকারী আসামিরা কোনোভাবেই অনুকম্পা পেতে পারে না।

অধ্যক্ষ মাহফুজার ছেলে সানিয়াত ইসমত অমিত তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

মাহফুজা চৌধুরী ২০০৯ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ইডেন কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। ২০১৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর এলিফেন্ট রোডে নিজের বাসায় খুন হন তিনি।

ওই ঘটনায় তাঁর স্বামী ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসমত কাদির গামা নিউ মার্কেট থানায় মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ওই বাসার গৃহকর্মী স্বপ্না ও রেশমা এবং রুনু বেগম নামে এক নারীকে গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নেয়। পরে স্বপ্না ও রেশমা হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন।

মামলার তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ২১ জুলাই স্বপ্না ও রেশমাকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন নিউ মার্কেট থানার এসআই আলমগীর হোসেন।

বিজ্ঞাপন

সেখানে বলা হয়, বাসায় থাকা ২০ ভরি সোনা, একটি মোবাইল ফোন এবং নগদ ৫০ হাজার টাকা চুরি করতে আসামিরা মাহফুজাকে নাকে-মুখে ওড়না পেঁচিয়ে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে।

যিনি তাদের ওই বাসায় কাজে দিয়েছিলেন, সেই রুনু বেগমের হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার প্রমাণ না পাওয়ায় তাকে অব্যাহতির আবেদন করা হয় অভিযোগপত্রে।

চলতি বছরের শুরুতে মামলাটি বিচারের জন্য দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। ৯ ফেব্রুয়ারি অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে বিচারক দুই আসামির বিচার শুরুর আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে ২৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণের পর মামরাটি বিচারের শেষ পর্যায়ে আসে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে বিচারক রায়ের জন্য ৪ অক্টোবর দিন ঠিক করে দেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন আবু আব্দুল্লাহ ভূঞা। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী মতিউর রহমান মতি।

এ বিষয়ক : রিফাত হত্যা : মিন্নি ও টিকটক হৃদয়সহ ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

Facebook Comments Box

Contact us

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share