মে ১৩, ২০২১

Bangla Kagoj । News from Bangladesh, World and Universe at any Language

বাংলা ভাষাসহ পৃথিবির সব ভাষায় সর্বশেষ ও প্রধান খবর, বিশেষ প্রতিবেদন, সম্পাদকীয়, পাঠকমত, খেলাধুলা ও বিনোদনসহ সব প্রান্তের গুরুত্বপূর্ণ সকল খবর।

তারেক-হারিছের যাবজ্জীবন বাবর-পিন্টুর ফাঁসি : গ্রেনেড হামলা মামলার ঐতিহাসিক রায়

২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর আসে সেই ঐতিহাসিক রায়। যে ঘটনা সংঘটিত হয়েছিল ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট। আর ওই রায়ে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবিরোধী সভায় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনায় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমলের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরীসহ আরও ১৯ আসামিকে দেওয়া হয় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর আসে সেই ঐতিহাসিক রায়। যে ঘটনা সংঘটিত হয়েছিল ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট। আর ওই রায়ে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবিরোধী সভায় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনায় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমলের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরীসহ আরও ১৯ আসামিকে দেওয়া হয় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

৪৯ আসামির মধ্যে পুলিশের সাবেক তিন আইজিপিসহ বাকি ১১ আসামিকে দুই থেকে তিন বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

মৃত্যুদণ্ড ও কারাদণ্ডের সাজার পাশাপাশি আসামিদের অর্থদণ্ডও দেন বিচারক। এ দুই মামলায় মোট আসামি ছিলেন ৫২ জন। এর মধ্যে অন্য মামলায় তিনজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ায় তাদের অব্যাহতি দেওয়া হয়। বাকি ৪৯ আসামির মধ্যে ৩১ জন কারাগারে আর ১৮ জন পলাতক। রায় ঘোষণার সময় পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

রায়ে বিচারক বলেন- ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশে চালানো ওই গ্রেনেড হামলায় তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও নিহত হন তার দলের ২৪ জন নেতাকর্মী। ওই হামলায় দলীয় নেতা-কর্মী, সাংবাদিক, পুলিশসহ কয়েক শতাধিক মানুষ আহত হয়েছিলেন। সেদিনের গ্রেনেড হামলার ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। এ দুই মামলার রায় ও আদেশ দেওয়ার জন্য আদালত ১৪টি বিষয় আমলে নেন। রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়।

বিচারক বলেন, আসামিদের সাজা কারাবাসকালীন সময় থেকে বাদ যাবে। যেসব আসামি দুই মামলায় সাজা পেয়েছেন তাদের একযোগে দণ্ড কার্যকর হবে। যারা পলাতক রয়েছেন, তাদের গ্রেপ্তার বা আত্মসমর্পণের পর থেকে দণ্ড কার্যকর হবে। আর কারাগারে থাকা আসামিদের দণ্ড ওই সময় থেকেই কার্যকর। তবে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের দণ্ড কার্যকরের ক্ষেত্রে হাইকোর্টের অনুমোদন নিতে হবে বলেও জানান বিচারক। রায়ে বিচারক আরও জানান, আসামিরা রায়ের দিন থেকে ৩০ দিনের মধ্যে হাইকোর্টে আপিল করতে পারবেন। এ মামলার জব্দকৃত আলামত পরের নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে নির্দেশ দেন আদালত।

মূল রায় ঘোষণার আগে রায়ের বিবেচ্য বিষয় ও আদেশের অংশ ঘোষণার পর রায়ের পর্যবেক্ষণ অংশ পড়েন বিচারক। পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেন- তৎকালীন (২০০৪ সাল) রাষ্ট্রীয় যন্ত্রের সহায়তায় প্রকাশ্য দিবালোকে এই হামলা চালানো হয়। হামলার পর আলামত ধ্বংস ও আসামিদের বাঁচানোর চেষ্টাও করা হয়েছে। আদালত এ ধরনের বর্বরোচিত হামলার আর পুনরাবৃত্তি চায় না। তাই আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে নৃশংস হামলার পুনরাবৃত্তি ঠেকানো সম্ভব বলেই মন্তব্য করেন বিচারক।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় দায়ের করা দুই মামলার মধ্যে প্রথমে হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। এ সময় বিচারক বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় অভিন্ন অভিপ্রায়ে পরিকল্পনা ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে হত্যার অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩০২/১২০ খ/৩৪ ধারায় দোষী সাব্যস্তক্রমে মৃত্যুদণ্ড, এক লাখ টাকা জরিমানা এবং মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রায় কার্যকরের আদেশ দেওয়া হলো। এ মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ডের ক্ষেত্রে রায়ে উল্লেখ করা হয়, নিহতদের অভিন্ন অভিপ্রায়ে পরিকল্পনা ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে হত্যার অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩০২/১২০ খ/৩৪ ধারায় দোষী সাব্যস্তক্রমে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হলো।

বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলার রায়ের দণ্ড দেওয়ার বিষয়ে আদালত বলেন, ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের ৩ ও ৬ ধারায় দায়ের করা মামলায় আসামিদের দোষীসাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ড, এক লাখ টাকা জারিমান এবং মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রায় কার্যকরের আদেশ দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

যাবজ্জীবনপ্রাপ্তদের ক্ষেত্রে রায়ে বলা হয়, ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের ৩ ও ৬ ধারায় দোষীসাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়। এ ছাড়া ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের ৪ ও ৬ ধারায় দোষীসাব্যস্ত সবাইকে (৩৮ জন) ২০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১৯ আসামি হলেন : বিএনপি জামায়াত জোট সরকার আমলের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবর, ডিজিএফআইয়ের সাবেক ডিজি মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, এনএসআইয়ের সাবেক ডিজি ব্রিগেডিয়ার (অব.) আবদুর রহিম, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, হানিফ পরিবহনের মালিক মো. হানিফ (পলাতক), মাওলানা মো. তাজউদ্দীন (পলাতক), মাওলানা শেখ আবদুস সালাম, মো. আবদুল মাজেদ ভাট ওরফে মো. ইউসুফ ভাট, আবদুল মালেক ওরফে গোলাম মোহাম্মদ, মাওলানা শওকত ওসমান, মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমান, মাওলানা আবু সাঈদ, আবুল কালাম আজাদ ওরফে বুলবুল, জাহাঙ্গীর আলম, হাফেজ মাওলানা আবু তাহের, হোসাইন আহমেদ তামিম, মঈন উদ্দিন শেখ, রফিকুল ইসলাম ও উজ্জ্বল ওরফে রতন।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত ১৯ আসামি : তারেক রহমান ওরফে তারেক জিয়া (পলাতক), হারিছ চৌধুরী (পলাতক), শাহাদাৎ উল্লাহ ওরফে জুয়েল, মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে আবু ওমর আবু হোমাইরা ওরফে পীরসাহেব, মাওলানা সাব্বির আহমদ ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির, আরিফ হাসান ওরফে সুজন ওরফে আবদুর রাজ্জাক, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, আবুবকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার, মো. আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ, মহিবুল মোত্তাকিন ওরফে মুত্তাকিন (পলাতক), আনিসুল মুরছালিন ওরফে মুরছালিন (পলাতক), মো. খলিল (পলাতক), জাহাঙ্গীর আলম বদর (পলাতক), মো. ইকবাল (পলাতক), লিটন ওরফে মাওলানা লিটন (পলাতক), কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ (পলাতক), মুফতি শফিকুর রহমান (পলাতক), মুফতি আবদুল হাই (পলাতক) এবং রাতুল আহম্মেদ বাবু (পলাতক)।

১১ জনের ২ ও ৩ বছর সাজা : পুলিশের সাবেক আইজিপি খোদা বক্স চৌধুরী (কারাগারে), সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (অব.) রুহুল আমিন (কারাগারে), এএসপি (অব.) আবদুর রশিদ (কারাগারে) ও এএসপি (অব.) মুন্সি আতিকুর রহমানকে (কারাগারে) তিন বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত। এছাড়া তাদের ৫০ হাজার টাকা করেও জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন আদালত। এছাড়া বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ভাগ্নে লেফটেন্যান্ট কমান্ডার (অব.) সাইফুল ইসলাম ডিউক (কারাগারে), সাবেক আইজিপি আশরাফুল হুদা (কারাগারে), সাবেক আইজিপি শহুদুল হক (কারাগারে), ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এ টি এম আমিন (পলাতক), লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) সাইফুল ইসলাম জোয়ারদার (পলাতক), ঢাকা মহানগর পুলিশের সাবেক উপকমিশনার ওবায়দুর রহমান (পলাতক) ও ডিএমপির সাবেক উপকমিশনার খান সাঈদ হাসানকে (পলাতক) দুই বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি তাদের ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

এর আগে মামলা : ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধি আওয়ামী লীগের সভায় গ্রেনেড হামলার ঘটনায় মতিঝিল থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা (প্রয়াত) আবদুল জলিল ও সাবের হোসেন চৌধুরী বাদী হয়ে মতিঝিল থানায় পৃথক তিনটি মামলা করেন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমলে মামলাগুলোর তদন্ত ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করা হয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে এই মামলার অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি।

Facebook Comments Box

Contact us

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share