অক্টোবর ২০, ২০২১

The Bangla Kagoj

বাংলা কাগজ । আপনার কাগজ । banglakagoj.net

দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে রিজেন্টের শাহেদ

সাবেক ফারমার্স ব্যাংকের (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক) গুলশান করপোরেট শাখার দুই কোটি টাকারও বেশি আত্মসাতের মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. শাহেদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদক কার্যালয়ে আনা হয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : সাবেক ফারমার্স ব্যাংকের (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক) গুলশান করপোরেট শাখার দুই কোটি টাকারও বেশি আত্মসাতের মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. শাহেদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদক কার্যালয়ে আনা হয়েছে। কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে সোমবার (১৭ আগস্ট) সকাল ১১টার দিকে তাঁকে সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে আনা হয়।

দুদকের একজন উপপরিচালকের নেতৃত্বে একটি দল সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

গত ১০ আগস্ট দুদকের রিমান্ড আবেদনের শুনানি করে ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ শাহজাহান মিরাজ গত ৬ আগস্ট আসামি মো. শাহেদকে ১০ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক মো. শাহেদকে সাতদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন।

জানা গেছে- ২০১৫ সালে ফারমার্স ব্যাংকের ২ কোটি ৭১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গত ২৭ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. শাহেদ, ফারমার্স ব্যাংকের নিরীক্ষা কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতিসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। দুদক প্রধান কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ শাহজাহান মিরাজ বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- পদ্মা ব্যাংকের সাবেক অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক উরফে বাবুল চিশতী চিশতী, তাঁর ছেলে রাশেদুল হক চিশতি এবং রিজেন্ট হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইব্রাহিম খলিল।

বিজ্ঞাপন

এর আগে গত ২২ জুলাই এনআরবি ব্যাংকের এক কোটি ৫১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মোহাম্মদ শাহেদসহ চারজনের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করে দুদক।

প্রসঙ্গত, গত ৬ জুলাই উত্তরায় রিজেন্টের হাসপাতালে অভিযান চালায় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। হাসপাতাল থেকে জব্দ করা হয় করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার ভুয়া প্রতিবেদন। পরদিন র‍্যাব বাদী হয়ে উত্তরা-পশ্চিম থানায় মামলা দায়ের করে।

গত ১৫ জুলাই শাহেদকে সাতক্ষীরা থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। পরদিন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) শাহেদের ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এরপর পৃথক পাঁচটি মামলায় ঢাকা ও সাতক্ষীরার পৃথক দুটি আদালত শাহেদের ৩৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

Facebook Comments Box

Contact us

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share