গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টের ভিত্তিতে অনলাইন নিবন্ধন : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টের ভিত্তিতে দেশের অনলাইনগুলোকে নিবন্ধন দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ডক্টর হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে ৫০টি অনলাইনকে নিবন্ধন দেওয়া হবে।

ঈদের পর এসব অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধন ফি জমা দেওয়াসহ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে নিবন্ধন নিতে পারবে। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সচিবালয়ে এ কথা জানান তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ওয়েবসাইটে অনেক প্রতিষ্ঠিত অনলাইনের নাম হয়তো দেখা যাবে না, তাঁদের ব্যাপারে রিপোর্ট নেগেটিভ তা নয়। কিন্তু এটি চলমান প্রক্রিয়া, যেহেতু তাঁদের ব্যাপারে আমরা এখনও রিপোর্ট পাইনি, সেজন্য তাঁদের নামগুলো হয়তো আজকে আপলোড হবে না। প্রতিষ্ঠিত অনলাইনগুলোর ব্যাপারে রিপোর্ট এলে তাঁরা সবাই রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

তিনি বলেন, এজন্য কারও কারও নাম বাদ পড়লে হতাশ হওয়ার কোনও কারণ নেই। মাত্র ৫০টির নাম আজকে আপলোড হবে। বাকিগুলো ধীরে ধীরে আপলোড হবে, এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। এগুলো করতে আমাদের কয়েকমাস সময় লাগবে।

বিজ্ঞাপন

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছিলাম যে অনলাইনগুলোর রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হবে। অনলাইনগুলো নিবন্ধন দেয়ার জন্য আমরা দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে দিয়ে সবগুলো অনলাইনের ব্যাপারে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছিলাম। তাঁরা অনেক অনলাইনের ব্যাপারে রিপোর্ট দিয়েছে আমাদের কাছে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আমরা কিছু অনলাইনের ব্যাপারে রিপোর্ট পেয়েছি। আপাতত ৫০টি অনলাইনের ব্যাপারে পজিটিভ রিপোর্ট পেয়েছি। সেগুলো আজকে রাতে ওয়েবসাইটে আপলোড হবে। তাঁরা নির্দিষ্ট ফি জমা দিয়ে ঈদের পরে রেজিস্ট্রেশন করে নেবে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আরও অনেক অনলাইনের ব্যাপারে নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে, যাদের ব্যাপারে নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে, তাঁদেরকে জানিয়ে দেওয়া হবে। আজকে অবাধ তথ্য প্রবাহের যুগে যখন দেশ ডিজিটাল হয়েছে, তখন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা সাড়ে ১০ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। মানুষ ব্যাপকভাবে ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইন পত্রিকাগুলো পড়ে।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.