আগস্ট ১, ২০২১

The Bangla Kagoj

আপনার কাগজ । banglakagoj.net

সাহেদ ও মাসুদের ১০ দিন, আর শিবলী ৭ দিনের রিমান্ডে

বৃহস্পতিবার আদালতে নেওয়া হয় সাহেদ, মাসুদ আর তরিক শিবলীকে।

মামলার তদন্তকারী সংস্থা গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয় থেকে সাহেদ ও মাসুদকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় আদালতেও নিরাপত্তার কড়াকড়ি বাড়ানো হয়।

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : রিজেন্ট হাসপাতালের সত্ত্বাধিকারি ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ও প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদ পারভেজকে ১০ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আর সাহেদের অপর সহযোগি তরিকুল ইসলাম শিবলীর পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে আবারও সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম শুনানি শেষে রিমান্ডের এই আদেশ দেন।

মামলার তদন্তকারী সংস্থা গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয় থেকে সাহেদ ও মাসুদকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় আদালতেও নিরাপত্তার কড়াকড়ি বাড়ানো হয়।

মহানগর হাকিম আদালতের কলাপসিবল গেইট বন্ধ রেখে কেবল দুই পক্ষের আইনজীবীদের ভেতরে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়। সাংবাদিকদের ভেতরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি।

মহামারিকালে রিজেন্ট হাসপাতালের নানা অনিয়ম-দুর্নীতির খবর ফাঁসের পর পালিয়ে যাওয়া সাহেদ বুধবার ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্তে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েন। পরে তাকে হেলিকপ্টারে করে নিয়ে আসা হয় ঢাকায়।

র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়, কলপে চুল কালো করে বোরাকা পরে নৌকায় করে দেবহাটা সীমান্তবর্তী নদী পেরিয়ে সাহেদ ভারতে পালানোর চেষ্টায় ছিলেন।

আর রিজেন্ট গ্রুপের এমডি মাসুদ পারভেজকে মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) সন্ধ্যায় গাজীপুরে কাপাসিয়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর দেওয়া তথ্যেই র‌্যাব সাহেদের সন্ধান পায়।

বুধবার বিকালে উত্তরার র‌্যাব সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেল র‌্যাবপ্রধান চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, “তিনি (সাহেদ) অনেক কিছু বলেছেন, তবে তদন্তের স্বার্থে তা বলা যাবে না।”

বিজ্ঞাপন

বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর সাহেদ ও মাসুদকে মামলা তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

চার মাস আগে বাংলাদেশে নতুন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর পরপরেই রিজেন্ট হাসপাতালকে ‘কোভিড ডেডিকেটেড’ হাসপাতালে হিসেবে রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার অনুমতি দেয় সরকার।

কিন্তু করোনাভাইরাস পরীক্ষা না করেই ভুয়া রিপোর্ট দেওয়া, নিয়ম বহির্ভূতভাবে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের প্রমাণ পাওয়ার পর র‌্যাব গত ৬ থেকে ৮ জুলাই অভিযান চালিয়ে রিজেন্ট হাসপাতালের মিরপুর ও উত্তরা শাখা বন্ধ করে দেয়।

র‌্যাবের ওই অভিযানের পর রিজেন্টের মালিক মোহাম্মদ সাহেদের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির খবরও সংবাদমাধ্যমে আসতে শুরু করে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সহসম্পাদক পরিচয়ে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে কীভাবে তিনি নানা অপকর্ম চালিয়ে আসছিলেন, সেসব তথ্যও এখন গণমাধ্যমে আসছে।

Facebook Comments Box

Call Now ButtonContact us

বাংলা কাগজ এ আপনাকে স্বাগতম।

X
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
Facebook91m
Twitter38m
LinkedIn4m
LinkedIn
Share