এবারের ইদে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র ইদুল আজহা। এবারের ইদে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাটের ব্যবস্থা করেছে সরকার। করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে খামারি ও ক্রেতাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় রেখেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

দেশে আরও আট-দশ বছর আগে থেকেই অনলাইনে কোরবানির পশু বিক্রি হলেও সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগ এবারই প্রথম।

আর সরকারি উদ্যোগে এটিই হবে দেশের সবচেয়ে বড় ‘কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট’। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আইডিয়া প্রকল্পের ‘স্টার্টআপ বাংলাদেশ’ ব্যানারে এই উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছে।

এই হাটে ক্রেতারা ঘরে বসেই গরুর ছবি ও ভিডিও দেখার ও লাইভ ওজন জানার সুযোগ পাবেন। একইসঙ্গে তিনি গরু চাষী, খামারি বা ব্যাপারিদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করার সুযোগ পাবেন। এরপর নির্দিষ্ট স্থান থেকে অথবা হোম ডেলিভারির ভিত্তিতে অর্থের বিনিময়ে গরু সংগ্রহ করতে পারবেন।

বিজ্ঞাপন

দেশের সর্ববৃহৎ এই ডিজিটাল হাটের জন্য সারাদেশ থেকে গরু- ছাগলের চাষী, খামারের মালিক ও সাধারণ পশু ব্যবসায়ীদের নিবন্ধন কার্যক্রম ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে। এই পেশা সব মানুষ https://foodfornation.gov.bd/qurbani2020 ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিনামূল্যে নিবন্ধন করার সুযোগ পাবেন।

নিবন্ধনের পর নিজস্ব প্যানেল থেকে পশুর ছবি, ভিডিও ও অন্যান্য তথ্য আপলোড করতে হবে। এই সকল ছবি ও তথ্য ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকার তার নিজ খরচে প্রচার করবে। ফলে ক্রেতারা সহজেই তাদের কুরবানির জন্য প্রয়োজনীয় পশু পছন্দের সুযোগ পাবেন এবং বিক্রেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে ডেলিভারি নিতে পারবেন।

এই প্রসঙ্গে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বাংলা কাগজকে বলেন, এটি কোরবানির পশুর জন্য দেশের সবচেয়ে বড় ম্যাচ মেকিং ডিজিটাল হাট হতে যাচ্ছে। খামারি ও চাষীদের অর্থনৈতিক ক্ষতি ও সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য আমরা এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমি সারাদেশের খামারি ও চাষীদের অনুরোধ জানাচ্ছি, আপনারা আপনাদের পশুর তথ্য নিয়ে এই প্লাটফর্মে আসুন। আমরা দেশের সকলের স্বাস্থ্য সুরক্ষা অটুট রেখেই আমাদের অর্থনৈতিক ও ধর্মীয় কর্মকান্ডগুলো চালু রাখতে চাই।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.