উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের ধাক্কায় বুড়িগঙ্গা সেতুতে ফাটল, ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের ধাক্কায় প্রথম বুড়িগঙ্গা সেতুতে দেখা দিয়েছে ফাঁটল। এতে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে সেতুটি।

রাজধানীর সদরঘাটে বুড়িগঙ্গা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চ উদ্ধার করতে আসা জাহাজের ধাক্কায় পোস্তগোলায় অবস্থিত বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু-১ (প্রথম বুড়িগঙ্গা সেতু)-এ ফাটল দেখা দেওয়া এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩০ জুন) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সওজের (সড়ক ও জনপদ বিভাগ) বিশেষজ্ঞ দল পরিদর্শন শেষে সেতুটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে। এর আগে সোমবার দুপুরে উদ্ধারকারী জাহাজের ধাক্কায় সেতুটিতে ফাটল দেখা দিলে রাতেই এর ওপর দিয়ে যানচলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে মঙ্গলবার বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের পর সেতুর ওপর দিয়ে সীমিত আকারে হালকা যানবাহন চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সওজের অতিরিক্ত প্রকৌশলী (ঢাকা অঞ্চল) সবুজ উদ্দিন খান বাংলা কাগজকে বলেন, উদ্ধাকারী জাহাজের ধাক্কায় প্রথম বুড়িগঙ্গা সেতুর এক জায়গায় ফাটল দেখা দেয়। আজ (মঙ্গলবার) সকালে সওজের একটি বিশেষজ্ঞ দল সেতুটি পরিদর্শন করে এটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ফাটল দেখা দেওয়ায় সেতুটির ওপর দিয়ে যান চলাচল তাৎক্ষণিকভাবে সীমিত করে দেওয়া হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সেতুর দুটি লেন খুলে দেওয়া হবে। তবে এর ওপর দিয়ে আপাতত শুধু বাস-প্রাইভেটকারের মতো হালকা যানবাহন চলাচল করবে। ভারী কোনো যানবাহনকে সেতুটির ওপর দিয়ে আপাতত চলাচল করতে দেওয়া হবে না। এ জন্য মাইকিং, প্রচারপত্র এবং সাইনবোর্ড লাগানো হবে।

সবুজ উদ্দিন খান আরও বলেন, প্রথম বুড়িগঙ্গা সেতুটি সম্পূর্ণ মেরামত না হওয়া পর্যন্ত এর ওপর দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচল করতে দেওয়া হবে না। ঠিক কত টন ওজনের যান ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজটি দিয়ে চলাচল করতে পারবে তা সওজের বিশেষজ্ঞরা শিগগিরই জানিয়ে দেবেন। যেসব যানবাহন সেতুটির ওপর দিয়ে চলাচল করতে পারবে না সেগুলোকে বাবুবাজার ব্রিজ দিয়ে চলাচলের অনুমতি দেওয়া হবে।

তিনি আরও জানান, বিশেষজ্ঞরা ইতোমধ্যে সেতুটি মেরামতের ডিজাইন করা শুরু করেছেন। আগামীকাল বুধবার আরো আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে সেতুটি স্ক্যান করা হবে। এক্সরের মতো করে এর ভেতরের অবস্থা দেখা হবে। তারপর ক্ষতিগ্রস্ত অংশ মেরামতের কাজ শুরু হবে। এ জন্য বেশ কিছুদিন সময় লাগবে।

প্রসঙ্গত, সোমবার সকালে সদরঘাট সংলগ্ন শ্যামবাজার এলাকায় মর্নিং বার্ড নামের একটি লঞ্চ ডুবে যায়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৪ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ডুবে যাওয়ার পর লঞ্চটিকে উদ্ধার করতে ওই দিন দুপুরের দিকে বন্দরনগরী নারায়ণগঞ্জ থেকে ‘প্রত্যয়’ নামের একটি উদ্ধারকারী জাহাজ ঘটনাস্থলে আসে।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.