মৃত অবস্থায় আইসিইউতে রেখেও টাকার জন্য আটকে রাখা হয় মরদেহ!

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : মৃত অবস্থায় একদিন রাখা হয় আইসিইউতে (নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র)। পরে দেড়লাখ টাকা বিলের জন্য আটকে রাখা হয় মরদেহ। এ ধরনের ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে রাজধানীর প্রশান্তি হাসপাতালের বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে প্রশান্তি হাসপাতালের চেয়ারম্যান ড. এস এম আলিম বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) দুপুরে বাংলা কাগজকে বলেন, আমরা যখন রোগীকে ভর্তি করি, তখন তিনি জীবিত ছিলেন। ‌‌‌

কিন্তু আইসিইউতে নেওয়ার পর রোগী মারা যায়, আর মারা যাওয়ার পরও রাখা হয় আইসিইউতে, কেন?- এমন প্রশ্নের জবাবে আলিম বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ এসেছে, সেগুলো মিথ্যা।

টাকার জন্য মরদেহ আটকে রাখার অভিযোগের ব্যাপারে কোনও সদুত্তর না দিয়ে আলিম বলেন, ১৮ তারিখে ওই ব্যক্তিকে দাফন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সূত্র জানায়, করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ১৪ জুন প্রশান্তি হাসপাতালে ভর্তি হন নোয়াখালীর সুবর্ণচরের বাসিন্দা মহিউদ্দীন পারভেজ। ভর্তির সময় অবস্থা ভালো থাকলেও হাসপাতালে দুদিন থাকার পর সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় পৌঁছে যান মহিউদ্দীন। সে সময় (১৬ জুন) তাঁকে নেওয়া হয় আইসিইউতে। কিন্তু ১৭ জুন ভোরে মারা যান মহিউদ্দীন। অথচ এরপরও আরও একদিন মহিউদ্দীনকে রাখা হয় আইসিইউতে। পরে দেড়লাখ টাকা বিলের জন্য আটকে রাখ হয় মরদেহ।

এ ব্যাপারে মহিউদ্দীন পারভেজের ছোট ভাই জসিম উদ্দিন রুবেল বলেন- ‌’লাশ নিতে গেলে আমাকে একটি রুমে আটকে রাখে এবং বলে আগে টাকা দে, পরে লাশ আর তোকে ছাড়ব।’

পরে রুবেলকে মানসিকভাবে আরও অনেক নির্যাতন করা হয় বলেও বাংলা কাগজের কাছে অভিযোগ করেছেন তিনি।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.