সনু নিগম বললেন, সঙ্গীত জগতেও আত্মহত্যার ঘটনা ঘটতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : সঙ্গীত জগতেও আত্মহত্যার ঘটনা ঘটতে পারে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন ওপার বাংলার বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী সনু নিগম। কাজ পেতে ‘বলিউড মাফিয়া’দের রাজত্ব ও স্বজনপ্রীতি নিয়ে বিভিন্ন স্টারের মুখ খোলার ধারাবাহিকতায় এবার মুখ খুললেন সনু নিগম।

তিনি বলেন, শুধু অভিনয় জগত নয়, বলিউডের সঙ্গীত জগতেও রয়েছে স্বজনপোষণ।

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিও প্রকাশ করে সনু নিগম বলেন, এই মুহূর্তে গোটা ভারত অনেককিছুর মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এক সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর মানসিক ও আবেগের চাপ রয়েছে। এটাই স্বাভাবিক, চোখের সামনে একটা তরতাজা প্রাণ চলে যাওয়াটা মানা কঠিন। যদি কেউ এটাতে প্রভাবিত না হয়, তাহলে বলতে হবে সে খুবই নিষ্ঠুর। আমিও একজন মানুষ, আমার উপরও প্রভাব পড়েছে।

‘আমি মিউজিক কোম্পানিদের কিছু অনুরোধ করতে চাই। আজ সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু হয়েছে, কাল কোনও গায়ক, কোনও সঙ্গীত পরিচালক, গীতিকার, সুরকারের সঙ্গেও এমনটা ঘটতে পারে। ফিল্মের থেকেও বড় মাফিয়া সংগীত জগতে রয়েছে। এটা দুর্ভাগ্যজনক। আমি এটা বুঝি যে ব্যবসা করাটাও দরকার। তবে অনেকেই ভাবেন আমিই রাজত্ব করব। আমার তো ভাগ্য ভালো যে আমি অতটাও প্রভাবিত হইনি। অনেক অল্প বয়সে এসেছিলাম। কিন্তু যারা নতুন আসছে, তাদের জন্য সময়টা কঠিন। এটা নিয়ে অনেকেই আমার কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অনেক ক্ষেত্রে মিউজিক ডিরেক্টর কাজ করতে চায়, প্রযোজক কাজ করতে চায়, অথচ শেষ সময় মিউজিক কোম্পানিতে গিয়ে আটকে যায়’, যোগ করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

সনু আরও বলেন, ‘আমি বুঝি আপনারা সবকিছু নিজেদের আয়ত্তে রাখতে চান, তবে এমনটা করবেন না, আশীর্বাদ, অভিশাপের একটা ব্যাপার রয়েছে। আমাদের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে দুটো কোম্পানির হাতেই সমস্ত ক্ষমতা রয়েছে। ওরাই ঠিক করেন, কে গাইবে আর কে গাইবে না। আমার তো কপাল ভালো আমি অনেক আগেই বেরিয়ে গেছি। তবে এসব কারণে, নতুন গায়ক, সংগীত পরিচালকরা অবসাদে ভোগেন। যদি ওনাদের কিছু হয়, তাহলে কিন্তু আপনাদের উপরও প্রশ্ন উঠবে।’

এবার পরোক্ষভাবে সালমান খানকে লক্ষ্য করে সনু নিগম বলেন, ‘নতুনদের প্রতি দয়া করে একটু দয়ালু হোন। আমার সঙ্গেও এমনটা হতে পারে। হতে পারে আমি গাইতে গেলাম, ওই অভিনেতা বলে দিল যে ওকে গাওয়াবেন না। যে অভিনেতাকে নিয়ে এখন প্রশ্ন উঠছে। উনি অরিজিৎ সিংয়ের সঙ্গেও এমনটা করেছিলেন। এত ক্ষমতা দেখাবেন না। আমিও অনেক গান গেয়েছি, যেটা ডাব হয়েছে। এটা বলতেও আমার অস্বস্তি হচ্ছে। এটা খুবই অপমানজনক। আমি তো বলি নি আমাকে দিয়ে গান গাওয়ান, আমায় গান গাইয়ে, পরে সেটা সরিয়ে দেওয়াটা অপমানজনক। আমি ১৯৮৯ সাল থেকে রেকর্ডিং করছি। আর এটা হাস্যকর আমার কাছে।’

সনু এদিন আরও বলেন, ‘আমার সঙ্গে যদি এমন করা হয়, তাহলে অল্প বয়সীদের সঙ্গে আপনারা কী করবেন! একটা গান নয়জনকে দিয়ে গাওয়ানো হয়েছে। এটা কী! দয়া করে একটু নমনীয় হোন। একজন গায়ককে দিয়ে ১০টা গান গাইয়ে ১০টাই বদলে দেওয়া হয়, পরে ১১ নম্বরটা হয়ত বলা হয় ঠিক আছে। এসব কেন? কোনও গায়ক, গীতিকার, সংগীত পরিচালকদের সঙ্গে এটা করা অন্যায়। আমি কাজ দিচ্ছি বলে যা খুশি করব, এই মানসিকতাটা খারাপ। একজন নতুন কেউ যখন আসছে, তখন তাকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। আমি বলেছি বলে হয়ত অনেকের রাগ হতে পারে। কিন্তু আমি যা দেখেছি, তাই বলছি, যারা নতুন তাদের প্রতি সহৃদয় হোন।’

প্রসঙ্গত, এদিন সনু নিগম দুই মিউজিক কোম্পানির প্রতি তোপ দাগার পাশাপাশি তিনি যে অভিনেতাকে আক্রমণ করেছেন, তিনি সালমান খান বলেই সবাই মনে করছেন। যদিও সনু সরাসরি সালমানের নাম একেবারেই উল্লেখ করেন নি। তবে অরিজিৎ সিংয়ের সঙ্গে অন্যায়ের প্রসঙ্গ টেনে আনার পরই অনেকে মনে করছেন সনুর তীর সালমান খানের দিকেই ছিল।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.