মাশরাফিসহ ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত তিন হাজার ২৪০ জন

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে তাঁর শরীরের তাপমাত্রা ৯৯ ডিগ্রি ফারেনহাইট। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশজুড়ে মাশরাফিসহ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিন হাজার ২৪০ জন।

জানা গেছে, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজার করোনা পজেটিভ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় শুক্রবার তিনটায়। এদিন ম্যাশের মুঠোফোনে খুদেবার্তার মাধ্যমে করোনা পজেটিভের বিষয়টি আসে।

বিষয়টি বাংলা কাগজকে নিশ্চিত করেছেন মাশরাফি বিন মর্তুজার বন্ধু বাবলু।

এর আগে ক’দিন হলো কিছুটা জ্বরে ভুগছিলেন মাশরাফি। শরীরে জ্বর বেশ কয়েকদিন স্থায়ী হলে করোনা টেস্ট করান নড়াইল এক্সপ্রেস। বর্তমানে নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন বলে জানিয়েছেন ম্যাশের আরেক ঘনিষ্ঠ বন্ধু সৌমেন চন্দ্র।

তবে তিনি জানান, এখনো পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় নি মাশরাফিকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হবে কিনা। করোনা পজেটিভ হবার খবর পেয়েও মানসিকভাবে বেশ আছেন।

সৌমেন জানিয়েছেন, ম্যাশ আপাতত বাসায় থাকলেও তাঁর পরিবারের বাকি সদস্যরা নিরাপদেই আছেন।

শুক্রবার ১০১ জ্বর থাকলেও শনিবার (২০ জুন) শরীরের তাপমাত্রা ৯৯-এ নেমে এসেছে। তবে হালকা ঠাণ্ডাও রয়েছে মাশরাফির।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে মাশরাফির বন্ধু বাবলু জানান, একবার পরীক্ষায় ফলাফল পজেটিভ এসেছে। তবে নিশ্চিত হওয়ার জন্য আরেক দফা টেস্ট করানো হবে।

এর আগে মাশরাফির শাশুড়ী ও স্ত্রী সুমনা হক সুমির বড় বোন রিক্তা করোনায় পজেটিভ হন।

অপরদিকে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন তিন হাজার ২৪০ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ৮ হাজার ৭৭৫ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৪২৫ জনে।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে ফিরেছেন এক হাজার ৪৮ জন করোনা রোগী। সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৪৩ হাজার ৯৯৩ জন। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৩ হাজার ৭৮৯টি। পরীক্ষা করা হয়েছে ১৪ হাজার ৩১টি। উল্লেখ করা যেতে পারে, প্রতিদিন যে নমুনা সংগ্রহ করা হয়, তার সব পরীক্ষা সম্ভব হয় না। অধিকাংশ দিন এমন ঘটনার প্রেক্ষিতে জমে থাকা নমুনাগুলো থেকে পরে সংগ্রহকৃত নমুনার সঙ্গে মিলিয়ে পরীক্ষা করা হলে সংগ্রহকৃত নমুনার চেয়ে পরীক্ষা করা নমুনার সংখ্যা বেশি হয়।

শনিবার (২০ জুন) দুপুরে করোনাভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে এ তথ্য জানান সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

দেশে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড আছে ৫৩ জনের। সে তথ্য জানানো হয়, ১৬ জুনের বুলেটিনে। আর সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড আছে ৪ হাজার ৮ জনের। ওই তথ্য জানানো হয় ১৭ জুনের বুলেটিনে।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.