নাসিমের বর্ণাঢ‌্য রাজনৈতিক জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মুখপাত্র এবং সাবেকমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের ছিল এক বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন। জাতীয় চার নেতার অন্যতম ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলীর এ সন্তান ছিলেন নিজের আলোয় উজ্জ্বল এক আলোকবর্তিকা।

মোহাম্মদ নাসিমের জন্ম ১৯৪৮ সালের ২ এপ্রিল সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর উপজেলায়। তাঁর বাবা শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং মাতা আমেনা মনসুর। শিক্ষাজীবনে মোহাম্মদ নাসিম জগন্নাথ কলেজ (বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

রাজনৈতিক জীবনে মোহাম্মদ নাসিম বিভিন্ন সরকারের সময় জেল, জুলুম ও নির্যাতন ভোগ করেছেন। তিনি পাকিস্তানের স্বৈরশাসন. নির্যাতনের বিরুদ্ধে আন্দোলনসহ স্বাধীন বাংলাদেশে সবে সামরিক ও স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে রাজপথের সক্রিয় ও অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন। তিনি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। দেশের সব অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে তিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক।

রাজনৈতিক পরিবারে বড় হওয়া মোহাম্মদ নাসিম ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে সংসদ নির্বাচন করতে পারেননি মোহাম্মদ নাসিম। পরে সেই আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তার ছেলে তানভীর শাকিল জয়।

মোহাম্মদ নাসিম ১৯৮৬ সালে প্রথম সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনেও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মোহাম্মদ নাসিম। পরে ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনি সিরাজগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচিত হন। একইসঙ্গে ২০১৮ সালের নির্বাচনেও তিনি ওই আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। রাজপথের পাশাপাশি জাতীয় সংসদেও তিনি ছিলেন উচ্চকণ্ঠ। ২০১২ সালে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে তিনি দলের সভাপতিমণ্ডলির সদস্যের দায়িত্ব পান এবং মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ দায়িত্ব পালন করেন।

বিজ্ঞাপন

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের গঠিত সরকারে মোহাম্মদ নাসিম স্বরাষ্ট্র, গৃহায়ন ও গণপূর্ত এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন এবং তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনও করেন। ওই সময় থেকেই তিনি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ১৪ দলকে বর্তমানে সংগঠিত রাখার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রয়েছে তাঁর।

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের মুখপাত্রও ছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যও।

স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনসহ দেশের প্রয়োজনে সবসময় রাজপথে সক্রিয় ছিলেন এ রাজনীতিক। নির্যাতনের পাশাপাশি কারাবরণও করতে হয়েছে মোহাম্মদ নাসিমকে।

একইসঙ্গে বিভিন্ন সমাজকল‌্যাণমূলক কর্মকাণ্ডেও জড়িত ছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। স্থাপন করেছেন বেশকিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও।

Facebook Comments Box

Leave a Reply

Your email address will not be published.