Category: রাজনীতি

নগরকান্দায় ধসে রয়েছে ব্রিজ : বাঁশের ২ সাঁকো করলেন যুবলীগ নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; মিজানুর রহমান, নগরকান্দা (ফরিদপুর) : ফরিদপুরের নগরকান্দায় কুমার নদের উপর নির্মিত বেইলি ব্রিজটি বালু ভর্তি ট্রাক নিয়ে ভেঙ্গে পড়ায় ফরিদপুর জেলা সদরের সঙ্গে নগরকান্দা সহ ৪/৫টি জেলার সড়ক পথে যানচলাচল বন্ধ হয়ে রয়েছে। আবার নগরকান্দা পৌরসভার সীমানাকে দুইভাগে বিভক্ত করেছে কুমার নদ।

এমন অবস্থায় কুমার নদের ওপর ৩৫ বছর আগে নির্মিত বেইলি এ ব্রিজ গত ২০ মার্চ বালি ভর্তি ট্রাক নিয়ে নদীতে ভেঙে পড়ে।

অথচ এখনও ব্রিজটি সংস্কার না হওয়ায় সাধারণ মানুষ রয়েছেন বিপদে। যদিও তাঁদের বিপদ কিছুটা লাগব হয়েছে নগরকান্দা পৌর যুবলীগের সাবেক সভাপতি কামরুজ্জামান মিঠুর নির্মিত বাঁশের সাঁকোর কারণে।

কামরুজ্জামান মিঠু বাংলা কাগজকে বলেন, কুমার নদীর বেইলি ব্রিজটি ভেঙ্গে পড়ায় দুই পাড়ের মানুষ নদি পারাপারে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছিলেন। আর তাঁদের কথা চিন্তা করেই দুটি বাঁশের সাঁকে তৈরি করে দিয়েছি।

উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা জেতী প্রু বাংলা কাগজকে বলেন, ব্রিজের সংস্কারের কাজ চলমান রয়েছে।

‘আশাকরি, কয়েক দিনের মধ্যেই কাজ শেষ হয়ে যাবে।’

প্রধানমন্ত্রী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিহত করতে দেশবাসির সহায়তা চাইলেন

বাসস : প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা করোনাভাইরাস হঠাৎ বেড়ে যাওয়ার কারণে স্বাস্থ্য নির্দেশিকা মেনে চলে এর সংক্রমণ প্রতিহত করায় সরকারকে সহয়তার জন্য দেশবাসির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার, জনসমাগম এড়ানো এবং অকারণে বাইরে বের হবার মতো স্বাস্থ্যঝুঁকি সকলকে এড়িয়ে চলারও পরামর্শ দিয়েছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনাভাইরাস শুরুর আগে যেমন হয়েছিলো, ঠিক তেমনভাবেই পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। আমরা করোনাভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছি। তবে, এটি করার জন্য সাধারণ মানুষের সহায়তা প্রয়োজন।’

প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার (পহেলা এপ্রিল) অপরাহ্নে জাতীয় সংসদে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে সংসদে শোকপ্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু করেছি বলে বোধহয় মানুষের মাঝে একটি বিশ্বাস জেগে গেছে। যারজন্য সকলেই ভাবছিলো কিছু হয়তো হবে না। আমি বারবার বলেছিলাম ভ্যাকসিন নিলেও সাবধানে থাকতে হবে। স্বাস্থ্যবিধিগুলো মেনে চলতে হবে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ঠেকাতে সরকারের পদক্ষেপ তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা অফিস-আদালতে বলে দিয়েছি সীমিত লোক নিয়ে কাজ করতে হবে। বেশি যেন মেশামিশি না হয়, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। অনেকেই সিমট্রম ছাড়াই করোনায় আক্রান্ত থাকতে পারেন। তার কোনও সমস্যা হচ্ছে না, কিন্তু যাঁর সঙ্গে কথা বলছেন বা মিশছেন তাঁর কিন্তু হয়ে যাচ্ছে। এটাও মাথায় রাখতে হবে।

‘করোনাভাইরাস আমরা মোটামুটি নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছিলাম। সবার মনে হচ্ছিলো সবকিছু যেনো ঠিক হয়ে গেছে। আমরা একেবারে কমিয়েও এনেছিলাম। সবকিছু নিয়ন্ত্রণেও এনেছিলাম। অর্থনৈতিক কাজগুলোও চলছিলো। কিন্তু আবার সারাবিশ্বব্যাপী এই করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এবারের করোনাভাইরাসটি হঠাৎ করে খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমনটি বাংলাদেশেও। আমাদের ২৯, ৩০ এবং ৩১ মার্চ-এমন দ্রুত বেড়ে গেছে যেটা চিন্তাও করা যায় না।’

মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা বন্ধ হয়ে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এই স্বাস্থ্যবিধি মানাটা কিন্তু বন্ধ হয়েছে। আমরা হিসাব করে দেখেছি যতগুলো বড় বড় বিয়ের অনুষ্ঠান, যাঁরা এই বিয়েবাড়িতে গেছেন, ফিরে এসে তাঁদের অনেকেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যাঁরা কক্সবাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে চলে গেছেন, সেখান থেকে যাঁরা এসেছে তাদের বেশি করে ধরেছে। এই দাওয়াত, খাওয়া-টাওয়া, দোকান-পাটে ঘোরাঘুরি যেসো অতিরিক্ত বেড়ে গিয়েছিলো।’

করোনা মোকাবিলায় দেশবাসির সহযোগিতা কামনা করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি বলেন, ‘প্রথমে করোনাভাইরাস দেখা দেওয়ার পর যেভাবে সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করেছিলাম। আমাদের সেইভাবে আবার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। ইতোমধ্যে কিছু নির্দেশনা আমরা দিয়েছি। ধীরে ধীরে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি নিয়ন্ত্রণে আনতে। সেইক্ষেত্রে জনগণের সহযোগিতা দরকার। করোনাভাইরাস সম্পর্কে সচেতন থাকলে এভাবে আমাদের মানুষগুলোকে হারাতে হতো না।’

সবাইকে মাস্ক পরার অনুরোধ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি সবাইকে অনুরোধ করব মাস্ক পরে থাকবেন। কারণ, করোনাভাইরাস নাক থেকে গিয়ে সাইনাসে আক্রমণ করে। সেইক্ষেত্রে সবাইকে মাস্ক পরে থাকতে হবে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে নাকে ভাপ নেওয়া। ভাপ নেওয়াটা খুবই কাজে লাগে। যখনই কেউ একটু বেশি মানুষের সঙ্গে মিশবেন-বা দোকানপাট অফিসে যাবেন। ঘরে ফিরে একটু যদি গরম পানির ভাপ নেন। এটা খুব কঠিন কাজ নয়।

‘যেকোনো একটি পাত্রে ভাপ তোলা গরম পানি। যেটাতে ভাপ আসে-ওই গরম পানির ওপর মুখটা রেখে- দরকার হলে একটি কাপড় দিয়ে মাথাটা ঢেকে গরম পানির ভাপটা নিঃশ্বাসে নিলে নাকের ভেতরে সাইনাস পর্যন্ত চলে যায়।’

করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে একাদশ সংসদের দ্বাদশ অধিবেশন শুরু হয় সকাল ১১টায়।

প্রয়াত মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, পত্রিকার সম্পাদক, শিক্ষাবিদ ও সংস্কৃতিক কর্মিসহ বিশিষ্টজনের মৃত্যুতে সর্বসম্মতিক্রমে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয় সংসদে।

মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনেক সংসদ সদস্যকে হারিয়েছি এটাই সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক। মাহমুদ উস সামাদ ভালো সংগঠক ছিলেন। তিনি শিশুদের সচেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আর্দশে অনুপ্রাণিত করার কাজ করে গেছেন। যখনই শুনলাম তিনি করোনায় আক্রান্ত, ব্যবস্থা নিতে না নিতেই তিনি চলে গেলেন। অত্যন্ত রাজনৈতিক সচেতন মানুষ ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে সিলেটের রাজনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হলো।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর রাজনৈতিক উপদেষ্টা প্রয়াত এইচ টি ইমামকে স্মরণ করে বলেন, বাংলাদেশ সরকার যখন থেকে গঠিত হয়, তখন থেকেই তিনি মন্ত্রিপরিষদ সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি একজন আমলা হলেও রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত সচেতন ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী জনকন্ঠ সম্পাদক সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিকউল্লাহ খান মাসুদকেও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।

২০০১ সালে পাকবাহিনীর স্টাইলে বিএনপি-জামায়াতের দেশের দক্ষিণ জনপদের মানুষ, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় এবং আওয়ামী লীগের নেতাকর্মিদের ওপর নির্যাতনের চিত্র পত্রিকায় পাতায় তুলে ধরতে তাঁর সাহসি ভূমিকার কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

টিকা নিলেন ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে টিকা নিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার (৩১ মার্চ) সকাল সাড়ে ১০টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) মন্ত্রী টিকার প্রথম ডোজ নেন।

টিকা নেওয়ার পরে মন্ত্রী তাঁর ফেসবুকে ভেরিফায়েড অ্যাকাউন্টে ‘উই আর অ্যাগেইন অ্যাট ওয়ার ইন ফাইটিং করোনা’ লিখে ৭টি ছবি প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আর বিএসএমএমইউ’র নবনিযুক্ত উপাচার্য ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ : ওবায়দুল কাদেরের ফেসবুক থেকে নেওয়া ছবি।

বিএসএমএমইউর নবনিযুক্ত উপাচার্য ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ বাংলা কাগজকে বলেন, ‘টিকা নেওয়ার পরে মন্ত্রীর কোনও অসুবিধা হয় নি।’

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ গত কয়েক দিনে বেড়েছে। সংক্রমণ রোধে জরুরি সেবাপ্রতিষ্ঠান ছাড়া সব অফিস ও কারখানা অর্ধেক জনবল দ্বারা পরিচালনা, উপাসনালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মানা, জনসমাগম সীমিত করা এবং গণপরিবহনে ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী পরিবহনসহ ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার।

কাদের মির্জা : পদত্যাগ করেছি, নির্বাচন করবো না, পদ-পদবিও আর নয়

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই ও নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমি আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করেছি।’

আবদুল কাদের মির্জা নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে তাঁর পদত্যাগের ঘোষণার কথা প্রথমে ছড়ায়। পরে বুধবার (৩১ মার্চ) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বাংলা কাগজ’র পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করেছি। আমার ও আমার কর্মি-সমর্থকদের ওপর প্রশাসনিক হয়রানি ও নিপীড়নের প্রতিবাদে, ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে নানাভাবে আমার নির্যাতনের শিকার হওয়ার প্রতিবাদে পদত্যাগ করেছি।’

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ভাই আবদুল কাদের মির্জা বলেন, তিনি দলের কোনও কর্মকাণ্ডের সঙ্গে থাকবেন না। তবে তাঁর কর্মি-অনুসারীরা দলীয় কর্মকাণ্ডে যুক্ত থাকলে তিনি দূর থেকে তাদের সমর্থন করবেন।

ফেসবুকে কাদের মির্জার যে পোস্টটি ছড়িয়ে পড়ে, সেখানে বলা আছে, ‘আমি কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করলাম। ভবিষ্যতে কোনও রকম জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব না। ভবিষ্যতে আমি কোনও রকম দলীয় পদ-পদবির দায়িত্ব নেব না।’

এর আগে বুধবার (৩১ মার্চ) এক ফেসবুক লাইভে আবদুল কাদের মির্জা বলেন, ‘আমি সব অনিয়মকারিদের বিরুদ্ধে কথা বলে এখন সবার কাছে খারাপ হয়ে গেছি। যে দলে সম্মান নাই, সেখানে আমি থাকবো না। আমি বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের সদস্য হয়েছি, সেখানে থেকেই কাজ করবো।’

তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে বলেন, ‘আপনি একসঙ্গে না পারলেও আস্তে আস্তে দলের দুর্নীতিবাজদের লাগাম টেনে ধরুন। যারা বেশি অনিয়মকারি, তাদের দল থেকে বের করে দিন।’

লাইভে কাদের মির্জা আরও বলেন, ঢাকায় সব দল একদল হয়ে গেছে। দিনের বেলা আলাদা রাজনীতি করলেও রাতের বেলা আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি মিলে হোটেলে একসঙ্গে হয়ে যায়। নিজের ভাই ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘তিনি পদ-পদবির জন্য অপশক্তির কাছে মাথা নত করেছেন।’

নওগাঁয় বিএনপির বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ১, আহত ৭ পুলিশ সদস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; এ কে এম কামাল উদ্দিন টগর ও রহমতউল্লাহ, নওগাঁ : নওগাঁয় পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মিদের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশ বাধা দিলে বিএনপি নেতাকর্মিরা ‘ক্ষিপ্ত হয়ে’ এক পর্যায়ে পুলিশের উপর চড়াও হয়। এ সময় তারা পুলিশ সদস্যদের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

এতে গাড়ী ও দোকানপাট ভাঙচুরের শিকার হয়।

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে লাঠিচার্জ, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে বিএনপির একজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ৪০ থেকে ৫০ জন নেতাকর্মি আহত হন।

এ ঘটনায় পুলিশের ৭ জন সদস্য আহত হয়েছেন।

আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এদিকে বিক্ষোভ মিছিলে সহিংসতার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বিএনপির ৩ জন নেতাকর্মিকে আটক করছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শহরের কেডির মোড়ে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে ওই ঘটনা ঘটে।

নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল বাংলা কাগজকে বলেন, এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

‘ঘটনায় জড়িত থাকায় ঘটনার পর ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রকিবুল আক্তার বাংলা কাগজকে বলেন, বিএনপির সমাবেশ চলাকালে নেতাকর্মিরা কোনও রকম উস্কানি ছাড়াই অতর্কিতভাবে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় অন্তত ৫-৭ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।

‘পরে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।’

‘এই নাশকতার সঙ্গে জড়িতদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

রাজাপুরে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য প্রার্থির প্রচার মাইক ও অটো ভাঙচুরের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; আ. রহিম রেজা, ঝালকাঠি : ঝালকাঠির রাজাপুরের শুক্তগড় ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের তালা প্রতীকে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য পদপ্রার্থি তরিকুল ইসলাম রিয়াজ মৃধার প্রচার মাইক ও অটো ভাঙচুর ও অটোচালককে মারধর অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন এবং মামলা দায়েরও হয়েছে।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দুপুরে রাজাপুর সাংবাদিক ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য প্রার্থি তরিকুল ইসলাম রিয়াজ মৃধা বলেন, আমি ও আমার পরিবারের লোকজন যুগ যুগ ধরে আওয়ামী লীগ দল করে আসছি। এলাকায় আমার প্রচুর জনপ্রিয়তা রয়েছে। তাতে আমার প্রতিপক্ষ ‘নব্য’ আওয়ামী লীগ ও জামায়াত-বিএনপির নেতাকর্মি পিংড়ি গ্রামের আলমগীর খলিফার ছেলে কাওসার হোসেন ওরফে নয়ন খলিফা (৩৫), এস্কান্দারের ছেলে মুরাদ (৩০) ও জলিল হাওলাদারের ছেলে টুকু হাওলাদারসহ (৩২) আরও অজ্ঞাত ৩/৪ জন ক্ষিপ্ত হয়ে সোমবার (২৯ মার্চ) বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে পিংড়ি গ্রামের মাঝু হাওলাদারের বাড়ির সামনে প্রচারণার সময় মাইকসহ অটোগাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে এবং চালককে মারধর করে। এ সময় চালকের সঙ্গে থাকা মুঠোফোনও ছিনিয়ে নেওয়া হয়।

‘প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অগ্নিসংযোগ ও হত্যাচেষ্টাসহ বিভিন্ন অপকর্মের একাধিক মামলা রয়েছে। তাদের কাছে এলাকাবাসি জিম্মি হয়ে পড়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কেউ কোনও স্বাক্ষী বা থানায় কোনও মামলা করার সাহস পাচ্ছে না। এরা এমন কোনও খারাপ কাজ নেই, যাহা তারা করতে পারে না। প্রতিপক্ষের লোকজন বর্তমানে আমাকে হত্যাসহ আমার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ও বসতঘরে অগ্নিসংযোগ করার হুমকি দিচ্ছে। নির্বাচনি কার্যক্রম চালাতে আমাকে এলাকায় প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। আমার জনপ্রিয়তা বেশি বলে গত নির্বাচনেও তারা আমার ওপরে হামলা ও বিভিন্ন রকম হয়রানি করে আমাকে বিজয়ি হতে দেয় নি।’

‘সোমবার (২৯ মার্চ) গভীর রাতে এলাকার একটি নির্বাচনি ক্যাম্প কে বা কারা অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দেয়। সেই বিষয়ে আমার বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষরা মিথ্যা মামলা দেওয়ারও হুমকি দিচ্ছে। বর্তমানে প্রতিপক্ষের লোকজনের তাণ্ডবের ভয়ে আমি, আমার পরিবারের লোকজন ও আত্মীয় স্বজন আতঙ্কিত হয়ে পড়েছি। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। তাই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আইনি সহযোগিতা কামনা করছি আমি।’

অভিযোগের বিষয়ে কাওসার হোসেন ওরফে নয়ন খলিফা বাংলা কাগজকে বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। এসব ঘটনায় আমরা কোনোভাবেই জড়িত নই।’

রাজাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বাংলা কাগজকে বলেন, ‘এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। ঘটনাটি পুলিশ তদন্ত করেছে।’

‘আসামি গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

ঝালকাঠিতে রাস্তায়ই নামতে পারে নি বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; আ. রহিম রেজা; ঝালকাঠি : বিএনপির কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঝালকাঠিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের আয়োজন করে জেলা বিএনপি। মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) সকাল ১১টায় পুরাতন কলেজ রোডে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট শাহাদাত হোসেনের চেম্বারে নেতাকর্মিরা জড়ো হয়।

এ সময় পুলিশের একাধিক দল চেম্বারের সামনের রাস্তায় অবস্থান নেয়।

এতে নেতাকর্মিরা চেম্বারের মধ্যেই এক রকম অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন।

একপর্যায়ে দলটির নেতাকর্মিরা প্রতিবাদ সমাবেশ করেন।

পুলিশের বাধায় টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির মিছিল পণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; রবিন তালুকদার, টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল পুলিশের বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) সকালে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিএনপি। এতে বাধা দেয় পুলিশ।

এ সময় পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মিদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়।

পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে বিএনপি নেতাকর্মিদের ধাওয়া করলে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

সম্মাননা পেলেন আওয়ামী লীগের ১০৫ প্রবীণ নেতাকর্মি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; মহসিন মিলন, বেনাপোল : দলীয় কর্মকাণ্ডে বিশেষ অবদানের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ১০৫ জন প্রবীণ নেতাকর্মিকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) সকালে স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তি এবং মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে যশোরের নাভারন ইউনিয়নের হাড়িয়া মাঠে এ সন্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বুলী।

ক্রেস্ট প্রদান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা আ. জলিল।

এ সময় আবেগঘন বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজুর রহমান মুকুল, আলহাজ নিজাম উদ্দিন, উজ্জল হোসেন, হাসান মাস্টার এবং আবু রায়হান জিকো।

অনুষ্ঠানে ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ বিপুল প্রবীণ নেতাকর্মি অংশগ্রহণ করেন।

সুবর্ণ জয়ন্তি উপলক্ষে সকল বেকার ও দুস্থ নাগরিকদের কর্মসংস্থানের জন্য ‘বেকার প্রকল্প’ নামে একটি কমিটি গঠন করা হয় অনুষ্ঠানে।

তথ্যমন্ত্রী : রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থের হাতিয়ার হবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : কোনও ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার হাতিয়ার না হতে মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ।

রবিবার (২৮ মার্চ) বিকেলে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান বলেন, ‘২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস পালন না করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশে আগমনকে অজুহাত বানিয়ে দেশ, রাষ্ট্র ও জনগণের সম্পত্তির ওপর আক্রমণ ও আগুন দিয়ে দেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ার পেছনে রাজনৈতিক অসৎ উদ্দেশ্য রয়েছে।’

‘কোমলমতি শিশু-কিশোরদেরকে রাজনৈতিক ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা, রাজনৈতিক হাঙ্গামার মধ্যে ঠেলে তাদের দিয়ে সরকারি সম্পত্তিতে আগুন দেওয়া অত্যন্ত ন্যক্কারজনক, অগ্রহণযোগ্য এবং দুষ্কৃতিকারী মনোবৃত্তি।’

বাংলাদেশের কওমি মাদরাসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের উদ্দেশে অনুরোধ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যে সমস্ত ব্যক্তিবর্গ তাঁদের রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার জন্য আপনাদেরকে ব্যবহারের অপচেষ্টা করছে, ব্যবহার করছে, তাদেরকে বর্জন করুন, তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হবেন না এবং শিশু-কিশোরদেরকে ব্যবহার করবেন না।’

‘কওমি মাদরাসার কল্যাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার বহু কাজ করেছেন এবং ইসলামের খেদমতে তিনি যে সমস্ত কাজ করেছেন অতীতে তা কেউ করে নি।’

‘যারা নিজেদের আমিরকে হত্যা করার মতো অপকর্ম করে, তাদের হাতে ধর্ম, রাষ্ট্র কোনোটাই নিরাপদ নয়।’

‘আপনারা জানেন যে, হেফাজতে ইসলামের প্রয়াত আমীর মওলানা আহমেদ শফীর পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ এবং মামলা দায়ের করা হয়েছে যে, দলের হাঙ্গামাকারিরা মওলানা শফীর রাইস টিউব এবং অক্সিজেন টিউব খুলে নিয়েছিলো এবং সেই কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।’

বিএনপি প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতা দিবসে এই হামলা এবং হরতালকেও পরোক্ষভাবে বিএনপি সমর্থন দিয়েছে আর জামায়াত সরাসরি সমর্থন দিয়েছে। অর্থাৎ এই নৈরাজ্যের পেছনে বিএনপি-জামায়াত যে ওতোপ্রোতভাবে যুক্ত, সেটি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গতকাল (শনিবার : ২৭ মার্চ) সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে খোলাসা করে দিয়েছেন।’

সম্প্রতি ২০ জনের বিবৃতি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘তাদের উচিত ছিল স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর দিন যারা ধর্মের নামে হাঙ্গামা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে বিবৃতি দেওয়া। কিন্তু তারা সেটি না করে সরকারি সম্পত্তিতে আগুন দেওয়া, ভূমি অফিস, রেল স্টেশন জ্বালিয়ে দেওয়া, থানা ও সাধারণ মানুষের ওপর আক্রমণকারীদের পক্ষ নিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তারা আর স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি বলে নিজেদের দাবি করতে পারেন না, টেলিভিশনের পর্দায় গিয়ে তারা সুশীল বলে দাবি করতে পারেন না, তারা উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর সঙ্গে মিশে গেছেন। তাই তাদেরকে বুদ্ধিজীবী বলতে লজ্জা হচ্ছে।’

মোদির সঙ্গে সংসদে বিরোধি দল জাপা প্রতিনিধি দলের বৈঠক

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : সফররত ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করেছে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধি দল জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিনিধি দল।

জাপার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে শুক্রবার (২৬ মার্চ) দুপুর ১টা থেকে মোদির সঙ্গে ২৫ মিনিট বৈঠক করে প্রতিনিধি দলটি।

বৈঠকে বিরোধি দলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ, বিরোধি দলীয় উপনেতা দলের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের, মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এবং কো-চেয়ারম্যান এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার ছিলেন প্রতিনিধি দলে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তি উৎসব ও মুজিব শতবর্ষের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন জাতীয় পার্টি নেতারা।

এ সময় জাতীয় পার্টি মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অকৃত্রিম সহায়তা, মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি বাস্তবায়ন, করোনাভাইরাস মহামারিতে বাংলাদেশকে টিকা ও অ্যাম্বুলেন্স দেওয়ায় ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

তিস্তাসহ অভিন্ন ৫৪টি নদীর পানি বন্টনে বাংলাদেশ যেনো ন্যায্য হিস্যা পায় এ ব্যাপারে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেন বিরোধীদলীয় নেতারা।

এ ছাড়া অন-অ্যারাইভাল ভিসা ও স্কলারশিপ বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা করেন। বাংলাদেশ ও ভারতের জনগণের সম্পর্ক উন্নয়নের বিষয়ে আলোচনা হয় বৈঠকে।

দুই দেশের কানেকটিভিটি বাড়ানোর বিষয়েও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

বৈঠকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশের ঐতিহাসিক আয়োজনে উপস্থিত হতে পেরে তিনি সম্মানিত বোধ করছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের অকৃত্রিম বন্ধুত্ব অক্ষয় হয়ে থাকবে। ভারত সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

ওবায়দুল কাদের : সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিহত করতে হবে

বাসস : ‘বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র থেমে নেই, আজও ষড়যন্ত্র চলছে’ বলেই মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভার সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু