Category: ভোগ্যপণ্য

খাদ্য দিবস : প্রধানমন্ত্রী বললেন, সুষম খাদ্য বিষয়ে সচেতনতা তৈরি করতে

বাসস : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের জনগণের পুষ্টির চাহিদা পূরণে সুষম খাদ্য গ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করে এ ব্যাপারে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃর্পক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সুষম খাদ্য গ্রহণের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করা একান্তভাবে জরুরি ও প্রয়োজন। এটা নিরাপদ খাদ্যের মধ্যেও পড়বে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে ‘জাতীয় নিরাপদ খাদ্য দিবস-২০২১’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী জনগণ বিশেষ করে বয়স্ক, শিশু ও গর্ভবতী নারীরা পুষ্টির জন্যে কিভাবে এই সুষম খাবার গ্রহণ করবে সে বিষয়ে তাদের সচেতন করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

তিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে খাদ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত এ সম্পর্কিত মূল অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিরাপদ খাদ্য কতৃর্পক্ষকে একটি অনুরোধ করবো- নিরাপদ খাদ্যের জন্য কেবল ল্যাবরেটরি টেস্টকরলেই হবে না। সেই সঙ্গে আরেকটি কাজ করতে হবে- সুষম খাদ্য কিভাবে গ্রহণ করতে হবে তা প্রচার করতে হবে।

‘খাদ্যটা কীভাবে নিলে সেটা সুষম হবে, সেটা যেমন মাথায় রাখতে হবে তেমনি প্রচারেরও ব্যবস্থা করতে হবে।’

সরকারপ্রধান বলেন, অতীতে দারিদ্রের কষাঘাতে জর্জরিত দেশের মানুষদের পুষ্টি সম্পর্কে সচেতনতা না থাকায় নুন মরিচ দিয়ে পেট ভরে চারটে ভাত খেয়ে ক্ষুধা নিবারণ করলেও এখন কিছুটা আমিষও ক্রয় করতে পারছে।

মানুষের ক্রয় ক্ষমতা আরও যাতে বাড়ে, তাদের যেন আর্থিক সচ্ছলতা আসে সেজন্যই তাঁর সরকার নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি এ সময় খাদ্যে ভেজাল দেওয়ার কঠোর সমালোচনা করে এ বিষয়েও জনসচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি আইন প্রয়োগে কঠোর হওয়ার জন্যও সংশ্লিষ্ট কতৃর্পক্ষকে নির্দেশ দেন।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এবং কৃষিমন্ত্রী ড.আব্দুর রাজ্জাক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন।

এতে স্বাগত বক্তব্য দেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মোছাম্মাৎ নাজমানারা খানুম।

এ সময় গণভবনপ্রান্তে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালসহ পিএমও এবং গণভবনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা ব্যবসা করছেন তারা দু’পয়সা বেশি আয়ের জন্য খাদ্যে ভেজাল দেয় বা পচা, গন্ধ, বাসী খাবার পরিবেশন করে থাকে। এভাবে নিজের লাভের জন্য মানুষের ক্ষতি আর করবেন না।’

‘এ ব্যাপারেও একদিকে যেমন সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে অন্যদিকে কঠোর হাতে তা দমনও করতে হবে। দুদিকেই ব্যবস্থা নেওয়াটা একান্তভাবে দরকার।’

তিনি খাদ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘সেই ব্যবস্থাগুলোও আপনাদের নিতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১শটি খাদ্যশিল্পে ‘সেফ ফুড প্ল্যান’ যে নেওয়া হচ্ছে এটি সারাদেশেই বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন এবং একেবারে গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত এটা নিয়ে যেতে হবে। আর দেশে কেন্দ্রিয়ভাবে ফুড টেস্টিং ল্যাব প্রতিষ্ঠার যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তা বিভাগীয় পর্যায়েও করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’৯৬ সালে যখন আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে তখন দেশে ৪০ লাখ মেট্রিক টন খাদ্য ঘাটতি ছিলো এবং ২০০১ সালে যখন ক্ষমতা হস্তান্তর করে তখন ২৬ লাখ মেট্রিক টন উদ্বৃত্ত খাদ্য গুদামে রেখে গিয়েছিলো।

এর ৮ বছর পর যখন আবার আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে তখন বাংলাদেশে খাদ্য ঘাটতি ছিলো ২৪ লাখ মেট্রিক টন।

‘এটি যে দল বা ব্যক্তি বিশেষগণ ক্ষমতায় থাকেন তাদের নীতির প্রশ্ন। আমাদের নীতি হচ্ছে নিজেরাই নিজেদের খাদ্য উৎপাদন করবো এবং সেইসঙ্গে পুষ্টি নিশ্চিত করার দিকেও আমরা বিশেষভাবে দৃষ্টি দিচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’৭৫ পরবর্তী সরকারগুলো খাদ্য উৎপাদনের চেয়ে আমদানি করায় বেশি উৎসাহি ছিল। কেননা, তাহলে তাদের কিছু মানুষের ব্যবসা হবে। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার ব্যবসা করতে আসে নি।

তিনি বলেন, ‘আমরা সেবক হিসেবে এসেছি। কাজেই, নিজেদের আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। কারও কাছে হাত পেতে চলতে চাই না।’

খাদ্যের সঙ্গেসঙ্গে যেনো পুষ্টির নিশ্চয়তা থাকে, সেজন্য তাঁর সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, অতি দরিদ্র জনগণের পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচি ও ভিজিডি কর্মসূচির আওতায় দেশের ২২০টি উপজেলায় ৬ ধরনের অণুপুষ্টি সমৃদ্ধ ‘পুষ্টিচাল’ বিতরণ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ১০০টি উপজেলায় পুষ্টি চাল বিতরণ করা হয়েছে এবং পর্যায়ক্রমে সারাদেশে এ কর্মসূচি সম্প্রসারণের পরিকল্পনা রয়েছে।

এ ছাড়া হেলদি মার্কেট, হোটেল রেস্টুরেন্ট গ্রেডিং করে গ্রিন জোন প্রতিষ্ঠা, নিরাপদ খাবার নিশ্চিত করাসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম বাস্তবায়নের মাধ্যমে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে যা যা করা প্রয়োজন তার সবকিছুই করা হবে।

সরকারের ‘নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩’ প্রণয়নের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ভেজাল ও দূষণমুক্ত নিরাপদ খাদ্যপ্রাপ্তির সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিতকরণে পিওর ফুড অর্ডিন্যান্স, ১৯৫৯ রহিত করে নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩ প্রণয়ন করেছি।

তিনি বলেন, নিরাপদ খাদ্য আইনের অধীনে ২০১৫ সালে ‘বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ’ নামে একটি সমন্বয়কারী কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে ইতোমধ্যে ৩টি বিধিমালা, ৭টি প্রবিধানমালা প্রণয়ন করে বৈজ্ঞানিক গবেষণার মাধ্যমে খাদ্য উৎপাদন থেকে ভোগ পর্যন্ত প্রতিটি পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে।

হোটেলগুলোতে খাদ্যের মান নিয়ন্ত্রণে তাঁর সরকারের গ্রেডিং স্টিকার প্রদানের তথ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প গড়ে তোলাতেও তাঁর সরকারের পদক্ষেপের উল্লেখ করেন।

প্রধানমন্ত্রী করোনার কারণে মানুষের মধ্যে পরিচ্ছন্ন থাকার প্রবনতা সৃষ্টি হওয়ায় এটিকে বিশেষ ইতিবাচক দিকে হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের মধ্যে সেই সচেতনতাটা এসেছে এবং মানুষ এখন নিজেরাই পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার চেষ্টা করে।’

তিনি এ প্রসঙ্গে করোনাকালিন নিয়মিত ফেস মাস্ক ব্যবহার এবং ঘন ঘন হাত পরিস্কার করার বিষয়টিও সকলকে স্মরণ করিয়ে দেন।

মুজিববর্ষ উদযাপনকালে এবং স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের দ্বারপ্রান্তে এসে প্রধানমন্ত্রী দেশের সকল গৃহহীন-ভূমিহীনকে অন্তত একটি ঘর নির্মাণ করে হলেও ঠিকানা গড়ে দেওয়ার এবং প্রত্যেক ঘরে বিদ্যুতের আলো জ¦ালাবার অঙ্গীকার পুণর্ব্যক্ত করেন এবং বলেন, ‘বাংলাদেশে একটি মানুষও আর গৃহহীন থাকবে না। সকল ঘরেই আমরা আলো জ্বালাবো।’

মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশব্যাপি চলমান বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে সকলকে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী উৎপাদন বৃদ্ধির ওপরেও গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি প্রত্যেককে অনুরোধ করবো যার যেটুকু জমি আছে তা চাষের আওতায় আনেন। এক ইঞ্চি জমিও যেনো অনাবাদি না থাকে।’

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে মুজিববর্ষ উপলক্ষে খাদ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত দেশব্যাপী শিক্ষার্থীদের রচনা এবং কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ করা হয়। খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিজয়ীদের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন।

সয়াবিনের দাম নির্ধারণ : তেলের বাজার শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণের হুঁশিয়ারি বাণিজ্যমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ভোজ্যতেল সয়াবিনের যৌক্তিক মূল্য প্রতি লিটারের (খোলা বাজারে) খুচরা মূল্য ১১৫ টাকা ও বোতলজাত ১৩৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। একইসঙ্গে ভোজ্য তেলের মূল্য অস্থিতিশীল থাকায় অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক বিষয়ক জাতীয় কমিটির সভা প্রতিমাসেই আয়োজন করা হবে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেছেন, এখন থেকে তেলের বাজার শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণ করা হবে।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে অত্যাবশকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক বিষয়ক জাতীয় কমিটির সভা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ হুঁশিয়ারি দেন মন্ত্রী।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রতি লিটার সয়াবিন খোলা বাজারে মিল গেটে ১০৭ টাকা, পরিবেশক মূল্য ১১০ টাকা এবং খুচরা মূল্য ১১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিনের মিল গেট মূল্য ১২৩ টাকা, পরিবেশক মূল্য ১২৭ টাকা এবং খুচরা মূল্য ১৩৫ টাকা।’

‘৫ লিটার বোতলজাত সয়াবিনের মিল গেট মূল্য ৫৮৫ টাকা, পরিবেশক মূল্য ৬০০ টাকা এবং খুচরা মূল্য ৬২৫ টাকা।’

‘আমাদের দেশে যে তেল ব্যবহার করি, তার ৭০ শতাংশ পাম সুপার, যার প্রতি লিটারের মিল গেট মূল্য (খোলা) ৯৫ টাকা, পরিবেশক মূল্য ৯৮ টাকা এবং খুচরা বাজারে ১০৪ টাকা।’

‘ভোজ্য তেলের আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে এ দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।’

সভায় বাণিজ্যসচিব জাফর উদ্দিন, মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামালসহ ভোজ্য তেল আমদানিকারক ও ব্যবসায়ি নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সামনে রমজান মাস, বর্তমানে মজুদ রয়েছে।