Category: খেলাধুলা

আইপিএল : হায়দারাবাদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং : প্রথমে ব্যাট করে ১৫০ তুললো মুম্বাই

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : চিপকে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের (SRH) মুখোমুখি হয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স (MI)। শনিবার (১৭ এপ্রিল) টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো রোহিত শর্মার (Rohit Sharma) মুম্বাই।

নির্ধারিত ওভারে ব্যাট করে মুম্বাই তুললো ৫ উইকেটে ১৫০।

হায়দারাবাদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে বড় রান তুলতে পারলো না ৫ বারের চ্যাম্পিয়ন টিম। বল হাতে ছাপ রাখলেন বিজয় শঙ্কর ও মুজিবুর রহমান।

এদিন কুইন্টন ডি কক (Quinton de Kock) ও রোহিতের ওপেনিং জুটিতে ৬.৩ ওভারে ৫৫ রান তোলে মুম্বাই। ২৫ বলের ঝোড়ো ৩২ রানের ইনিংস খেলে আউট হয়ে যান রোহিত। বিজয় শঙ্করের বলে বিরাট সিংয়ের হাতে ক্যাচ তুলে দেন হিটম্যান। মুম্বাইয়ের অধিনায়ক ফিরতেই সূর্যকুমার যাদব (Suryakumar Yadav) ও ঈশান কিশানও (Ishan Kishan) শুধু এলেন আর গেলেন।

সূর্যকুমার ১০ রান করে শঙ্করের বলেই তাঁর হাতে ক্যাচ তুলে দেন। অন্যদিকে ঈশান করলেন মাত্র ১২। মুজিবুর রহমানের বলে জনি বেয়ারস্টোর হাতে জমা পড়ে গেলেন তিনি।

নিয়মিত ব্যবধানে পরপর ৩ উইকেট হারানো মুম্বই রীতিমতো ধুঁকতে থাকে। এরপর দুই গেমচেঞ্জার কায়রন পোলার্ড (Kieron Pollard) ও হার্দিক পাণ্ডিয়া (Hardik Pandya) আসেন দলের রানের গতি বাড়াতে। কিন্তু পান্ডিয়া স্কোরবোর্ডে মাত্র ৭ রান যোগ করেই ফিরে গেলেন। এরপর পোলার্ডকে সঙ্গ দিতে আসেন ক্রুনাল পান্ডিয়া (Krunal Pandya)। শেষের দিকে পোলার্ড কিছুটা আলো ছড়ালেন বলেই মুম্বাই ১৫০ রান তুলতে সমর্থ হলেন। ক্যারিবিয়ান স্টার ২২ বলে ৩৫ রানের ঝোড়ো ইনিংস না খেলতে পারলে মুম্বাই এই রানও তুলতে পারতো না।

টেস্ট ক্রিকেটের মর্যাদা পেলো বাংলাদেশ নারি ক্রিকেট দল (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ঘরোয়া ক্রিকেটে বড় দৈর্ঘ্যের সংস্করণ চালু করে, একটু প্রস্তুতি নিয়ে মেয়েদের টেস্ট মর্যাদার জন্য আবেদন করার ভাবনায় ছিলো বিসিবি।

এর আগেই আইসিসি সব পূর্ণ সদস্য দেশের নারি দলকে স্থায়ীভাবে টেস্ট ও ওয়ানডে মর্যাদা দিয়ে দিয়েছে।

হুট করে টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার আনন্দে অবশ্য ভেসে যাচ্ছে না বাংলাদেশ।

তড়িঘড়ি করে কোনও টেস্ট আয়োজন না করে মেয়েদের ঘরোয়া ক্রিকেটকে নতুন করে সাজানোর পরিকল্পনা করছে বিসিবি।

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি এক বিজ্ঞপ্তিতে স্থায়িভাবে ওয়ানডে ও টেস্ট মর্যাদা নিয়ে নতুন এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।

এখনও পর্যন্ত ১০টি দেশ খেলেছে মেয়েদের টেস্ট।

বিসিবির নারি বিভাগের ম্যানেজার তৌহিদ মাহমুদ বাংলা কাগজকে বলেন, আইসিসির ঘোষণার পর পরিকল্পনা গুছিয়ে আনার কাজ শুরু করেছেন তাঁরা। টেস্ট খেলার জন্য নির্দিষ্ট কোনও সময়ের দিকে তাকিয়ে নেই তাঁরা। মাঠে নামতে চান পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়েই।

‘সামনে প্রচুর কাজ, শুরু করতে চাই ঘরোয়া ক্রিকেট দিয়ে। আইসিসি আমাদের এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায় নি। তাঁরা আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানাবে। একটা গাইডলাইন পাঠাবে। আমরা সেই গাইডলাইনের জন্য অপেক্ষা করছি। সেটা অনুযায়িই আমরা এগোবো।’

‘আমি মনে করি, বাংলাদেশের মেয়েদের ক্রিকেটের জন্য, এটা খুব ইতিবাচক একটি ব্যাপার হলো। মেয়েদের ক্রিকেটে আমরা হয়তো একটা সময় পর টেস্ট মর্যাদার জন্য আবেদন করতাম। সেটা আগেভাগেই পেয়ে গেলাম। এখন খেলোয়াড়রা অনেক বেশি অনুপ্রাণিত থাকবে। আরও অনেক বেশি মেয়ে ক্রিকেটকে ইতিবাচকভাবে নেবে।’

করোনাভাইরাসের জন্য ২ বছর ধরে থমকে আছে মেয়েদের বড় দৈর্ঘ্যের টুর্নামেন্টের পরিকল্পনা। টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর প্রথম সুযোগেই এই টুর্নামেন্ট শুরুর তাগিদ অনুভব করছেন তৌহিদ।

‘২০২০ সালেও আমাদের পরিকল্পনায় এটা ছিলো। কিন্তু কোভিডের জন্য সেবারও করতে পারি নি। এবারও পরিকল্পনায় আছে কিন্তু মহামারির প্রাদুর্ভাবে করা যাচ্ছে না। আমরা ৩ বছর ধরেই ভাবছি অন্তত দুই দিনের ম্যাচের একটা টুর্নামেন্ট চালুর।’

‘ওরা এখন কেবল ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি খেলে, হঠাৎ করে ৩ কিংবা ৪ দিনের ম্যাচ খেলতে নামলে মানিয়ে নিতে ওদের সমস্যা হতে পারে। এর জন্য প্রাথমিকভাবে আমরা দুই দিনের ম্যাচ দিয়ে শুরু করতে চেয়েছিলাম। অন্তত বড় দৈর্ঘের ক্রিকেটটা শুরু হোক। আইসিসির এই সিদ্ধান্ত আমাদের সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নকে ত্বরান্বিত করবে। টেস্ট তো আর হঠাৎ করে খেলা যাবে না। একটা প্রস্তুতির ব্যাপার আছে, খেলোয়াড় তৈরির ব্যাপার আছে।’

বিসিবির নারি ক্রিকেট বিভাগের প্রধান শফিউল ইসলাম চৌধুরি নাদেল বাংলা কাগজকে বলেন, আইসিসির ঘোষণায় এ দেশের মেয়েদের ক্রিকেটের চেহারা পাল্টে দেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে।

‘এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের ও গর্বের। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তির বছরে আইসিসি টেস্ট মর্যাদা দেওয়ার এই সিদ্ধান্তটা নিলো।’

‘এখন আমাদের সামনে মূল চ্যালেঞ্জ, আমাদের বড় দৈর্ঘ্যের ক্রিকেট শুরু করতে হবে। স্কুল ক্রিকেট, বয়সভিত্তিক ক্রিকেট চালুর পর মেয়ে ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়ছে। এই সংখ্যাটা আমরা আরও বাড়িয়ে নিতে চাই।’

অবকাঠামো ও সুযোগ-সুবিধাসহ মেয়েদের ক্রিকেটের ভিত শক্ত করতে মেয়েদের জন্য একটি স্টেডিয়াম নির্দিষ্ট করে পেতে চান বিসিবি পরিচালক নাদেল।

‘পরের বোর্ড মিটিংয়েই ব্যাপারটা তুলবো। সেই মাঠটা হবে শুধু মেয়েদের ক্রিকেটের জন্য। সেখানে ইনডোর, জিম থেকে শুরু করে সব সুযোগ-সুবিধা থাকবে।’

সব পরিকল্পনা ঠিকঠাক মতো এগোলেই কেবল টেস্ট খেলার ভাবনা নাদেলের। মাঠে নামতে চান পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে।

‘এতোদিন আমরা ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি নিয়ে কাজ করেছি। আমাদের চিন্তা-ভাবনা ছিল এই দুই সংস্করণকে ঘিরে। এখন টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর এই সংস্করণ নিয়েও আমাদের ভাবতে হবে। লোকবল বাড়াতে হবে। এটাও আমাদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ।’

‘প্রস্তুতি নিয়েই আমরা টেস্ট খেলতে চাই। চাই না হুট করে খেলতে নেমে মেয়েরা বাজে ফল করুক। আগে আমাদের বড় দৈর্ঘ্যের ক্রিকেট শুরু করতে হবে। করোনাভাইরাস পরবর্তী সময়েই যেন শুরু করতে পারি, সেই চেষ্টা থাকবে।’

মেয়েদের টেস্ট ম্যাচ অবশ্য ক্রিকেট বিশ্বজুড়েই হয় খুব কম। গত ৫ বছরে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া তিনটি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে, আর কোনো দল টেস্ট খেলেনি। ভারত সবশেষ টেস্ট খেলেছে ২০১৪ সালের নভেম্বরে, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তান, নিউ জিল্যান্ড ২০০৪ সালের পর কোনও টেস্ট খেলে নি। শ্রীলঙ্কার মেয়েরা তাদের একমাত্র টেস্ট খেলেছে ১৯৯৮ সালে।

হাসপাতালে ভর্তি নিয়ে টেন্ডুলকারের টুইট

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার এক সপ্তাহ পর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন শচিন টেন্ডুলকার। স্বাস্থ্য সতর্কতার অংশ হিসেবেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারতের ব্যাটিং কিংবদন্তি।

এক টুইট বার্তায় শুক্রবার (২ এপ্রিল) হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার কথা জানান তিনি। আশা করছেন কয়েকদিনের মধ্যেই বাড়ি ফেরার।

গত শনিবার (২৭ মার্চ) কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন টেন্ডুলকার। ভারতের রায়পুরে হওয়া রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজ থেকে ফিরে মৃদু উপসর্গ দেখা দিলে তিনি পরীক্ষা করান।

গত কয়েকদিন নিজ বাসায় কোয়ারেন্টিনে ছিলেন আগামি ২৪ এপ্রিল ৪৮ বছর পূর্ণ করতে যাওয়া টেন্ডুলকার।

কেবল টেন্ডুলকারই নন, সাবেকদের ওই টুর্নামেন্টে খেলা ভারতীয় সাবেক ক্রিকেটার ইউসুফ পাঠান, এস বদ্রিনাথ ও ইরফান পাঠানও আক্রান্ত হয়েছেন করোনাভাইরাসে।

ঢাকায় মোদিকে ঘিরে তারার মেলা

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা, সাকিব আল হাসান এবং অভিনেত্রী জয়া আহসানসহ বাংলাদেশের ক্রীড়া ও অভিনয়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের তারকারা।

শুক্রবার (২৬ মার্চ) দুপুরে হোটেল সোনারগাঁওয়ে সফররত ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তাঁরা।

মাশরাফি, সাকিব ও জয়ার পাশাপাশি অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া, নির্মাতা রেদোওয়ান রনি, নারী ক্রিকেটার সালমা খাতুন ও জাহানারা আলম, চিরকুট ব্র্যান্ডের শারমিন সুলতানা সুমি, জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা কোরভি রাকশান্দ ধ্রুব ছিলেন এই তারকাদের দলে।

তাঁদের সেই সাক্ষাতের ছবি টুইটারে শেয়ার করা হয়েছে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের অ্যাকাউন্ট থেকে থেকে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আয়োজনে যোগ দিতে ২৬ মার্চ সকালে বাংলাদেশে পৌঁছান নরেন্দ্র মোদি।

বিকেলে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডের কেন্দ্রীয় আয়োজনে সম্মানিত অতিথি হিসেবে যোগ দিয়েছেন তিনি।

শুক্রবারের বিশেষ : মজার খেলা ডাংগুলি এখন বিলুপ্তির পথে

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; আব্দুল আউয়াল, ঠাকুরগাঁও : ডাংগুলি খেলা বলতেই মনে পড়ে যায় ডানপিটে সেই শৈশবের। এ খেলা দেশের সব জায়গাতেই খুব জনপ্রিয় ছিলো। কিন্তু এখন খেলাটি হারানোর পথে।

নিয়ম : দুই দলে ভাগ হয়ে এটি খেলতে হয়। একটি দেড় হাত লম্বা লাঠি এবং এক অর্ধ হাত পরিমাণ লম্বা একটি কাঠিই হলো খেলার উপকরণ।

লম্বা লাঠিটিকে বলে ডাণ্ডা আর ছোটটিকে গুলি।

খেলার নিয়ম : মাঠে ছোট্ট একটি লম্বালম্বি গর্ত করা হয়। টসের মাধ্যমে যাঁরা জেতেন, তাঁদের একজন গর্তের ওপর গুলি রেখে ডাণ্ডা মেরে তুলে সেটিকে দূরে ফেলার চেষ্টা করে।

প্রতিপক্ষ তখন চারদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে গুলিটি ধরার জন্য।

তারা গুলিটি মাটিতে পড়ার আগেই ধরে ফেলতে পারলে ডাণ্ডা মারা খেলোয়াড়টি আউট হয়ে যায়। আর না ধরতে পারলে প্রথম খেলোয়াড়টি তার ডাণ্ডা গর্তের ওপর রাখে এবং প্রতিপক্ষ গর্তের ওপর রাখা ডাণ্ডা লক্ষ্য করে গুলিটি ছুড়ে মারে। গুলিটি ডাণ্ডা ছুঁলে প্রথমজন আউট। আর ডাণ্ডা না ছুঁলে তিনি আবারও গুলিটি ডাণ্ডা দিয়ে দূরে ঠেলে পাঠান।

পরে প্রথম ব্যক্তি গুলি থেকে গর্ত পর্যন্ত ডাণ্ডা দিয়ে পরিমাপ করেন।

এ মাপ হয় ৭ ভিত্তিক।

এক্ষেত্রে আউট না হওয়া পর্যন্ত একজন খেলোয়াড় খেলতে পারেন। দলের সবাই আউট হয়ে গেলে পরের দল খেলতে নামেন।

এখন এই খেলা আর নেই বললেই চলে।

হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের ডাংগুলি।

ডাংগুলি খেলার পরিমাপ করা হয়, এভাবে : এরি, দুড়ি, তেড়ি, চাঘল, চাম্পা, ডেগ ও লংকা।

এমন সাত মাপে হয় এক ফুল বা গুট। আর সাত ফুলে হয় এক লাল এবং লাল ফুল ভাঙা থাকলে তা পরের খেলায় যোগ হয়।

টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে ভারত, ৯ম বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : মাঠে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পুরস্কার পেয়েছে ভারত। আইসিসির টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ে নিউজিল্যান্ডকে টপকে শীর্ষে উঠেছে বিরাট কোহলির দল। একইসঙ্গে জায়গা করে নিয়েছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট হেরেও ভারত ৪ টেস্টের সিরিজ জিতে নিয়েছে ৩-১ ব্যবধানে। শনিবার (৬ মার্চ) চতুর্থ টেস্ট শেষ হওয়ার পর নিউজিল্যান্ডকে পেছনে ফেলে স্বাগতিকরা।

সবার ওপরে থাকা ভারতের রেটিং পয়েন্ট ১২২। গত জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করে টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ে প্রথমবারের মতো শীর্ষে ওঠা নিউজিল্যান্ড এখন দুইয়ে, রেটিং পয়েন্ট ১১৮। তিনে থাকা অস্ট্রেলিয়ার পয়েন্ট ১১৩।

২০১৬ সালের অক্টোবরের পর গত মে মাসে আইসিসির বার্ষিক র‍্যাঙ্কিং হালনাগাদে শীর্ষস্থান হারায় ভারত। তাদেরকে তিনে ঠেলে তখন চূড়ায় উঠেছিলো অস্ট্রেলিয়া। এবার কোহলিরা পুনরুদ্ধার করলেন সেই অবস্থান।

টানা দুটি টেস্ট সিরিজ জিতল ভারত। অস্ট্রেলিয়ার পর এবার ইংল্যান্ডকে হারালো তারা। আর তাতে জায়গা করে নিল র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে।

আইসিসির টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট টেবিলেও শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ভারত। নিশ্চিত করেছে ফাইনাল। আগামী ১৮ থেকে ২২ জুন হতে যাওয়া ফাইনালে তাঁদের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড।

তৃতীয় টেস্ট হেরে ফাইনালের লড়াই থেকে ছিটকে যায় ইংল্যান্ড। টিকে ছিলো অস্ট্রেলিয়ার আশা। তবে ভারত হারলেই কেবল ফাইনালে দেখা হতো ভাসমান সাগর পাড়ের দুই দেশের। তাঁদের আশা গুঁড়িয়ে কোহলিরা শেষ টেস্ট জিতে নিয়েছেন ৩ দিনেই।

র‍্যাঙ্কিংয়ে ১০৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ৪-এ ইংল্যান্ড।

৫১ পয়েন্ট নিয়ে ৯ নম্বরে আছে বাংলাদেশ।

রাঙামাটিতে বঙ্গবন্ধু উন্মুক্ত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; শহিদুল ইসলাম হৃদয়, রাঙামাটি : রাঙামাটিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে বঙ্গবন্ধু উন্মুক্ত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২১’র উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে চিং হ্লা মং মারী স্টেডিয়ামে আয়োজিত টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ।

এ সময় জেলা ক্রিড়া সংস্থার ক্রিকেট উপ-পরিষদের আহ্বায়ক ও পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে ডিজিএফআইয়ের কর্নেল ইরফান ইবনে রউফ, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হাজী কামাল উদ্দিন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শফউল আজমসহ জেলা ক্রীড়া সংস্থার অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, বর্তমানে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট দেশকে অনেক উপরে নিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আশা ব্যক্ত করেন, ‘যাঁরা আজকে বঙ্গবন্ধু উন্মুক্ত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেছে, তাদের থেকেই জাতীয় পর্যায়ে খেলোয়াড় বের হয়ে আসবে।’

বঙ্গবন্ধু উন্মুক্ত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে সদরের মোট ১৬টি ক্রিকেট টিম অংশগ্রহণ করছে।

উদ্বোধনি ম্যাচে কনফিডেন্স ক্রিকেট একাডেমি বনাম মহসিন কলোনী স্পোর্টিং ক্লাব দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু হয়।

উ‌দ্বোধনি খেলায় জয় লাভ করেছে কন‌ফি‌ডেন্স ক্রি‌কেট একা‌ডেমি।

ইংল্যান্ডকে হারাতে দুই দিনও লাগলো না ভারতের

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : আহমেদাবাদ টেস্টের দ্বিতীয় দিনের তৃতীয় সেশনের খেলা অনেকটা বাকি থাকতেই বিশাল জয় তুলে নিয়েছে ভারত। ১৯৩৫ সালের পর এটাই সবচেয়ে কম দৈর্ঘ্যের টেস্ট।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) গুজরাটের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে দিনরাতের টেস্টে রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও অক্ষর প্যাটেলের ঘূর্ণিঝড়ে কুপোকাত ইংল্যান্ডকে ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধান হারিয়েছে বিরাটবাহিনী। ইংলিশদের ছুড়ে দেওয়া মাত্র ৪৯ রানের লক্ষ্য কোনো উইকেট না হারিয়েই পেরিয়ে যায় স্বাগতিকরা। পুরো ম্যাচ শেষ হয় মাত্র ১৪০.২ ওভারে।

১৯৩৫ সালে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার একটি টেস্ট ম্যাচ এরচেয়েও দ্রুত শেষ হয়। তবে ওই ম্যাচের কম দৈর্ঘ্যের পেছনে ছিল বৃষ্টি আর অল্প রানে ইনিংস ডিক্লেয়ার করার অদ্ভুত কারণ। আর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯৪৬ সালের মার্চে ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার টেস্ট ম্যাচ শেষ হয়েছিল প্রায় ১৪৫ ওভারে।

ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জো রুটের প্রথমবারের মতো ৫ উইকেট শিকারের কীর্তিতে ৩ উইকেটে ৯৯ রান থেকে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরুর কিছুক্ষণ পর ১৪৫ রানেই থামে ভারতের ইনিংস। এই পার্টটাইম বোলার এক ইনিংসে ৫ উইকেট তুলে নেওয়া স্পিনারদের ক্ষেত্রে সবচেয়ে কম রান খরচ করেছেন। ৪ উইকেট নেন জ্যাক লিচ। ইংল্যান্ডের ইতিবাচক সময় ওইটুকুই।

এর পর ইংল্যান্ডও দ্রুত অলরাউট হলে দিনের প্রথম দুই সেশনেই পতন ঘটে ১৭ উইকেটের। প্রথম ইনিংসের মতো নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসেও ভারতীয় স্পিনে বিধ্বস্ত হয়েছে ইংল্যান্ড। অক্ষর প্যাটেল ও অশ্বিনের তোপে মাত্র ৮১ রানেই গুটিয়ে গেছে সফরকারীরা। টেস্টে ভারতের বিপক্ষে এটাই তাদের সর্বনিম্ন ইনিংস। এর আগে ১৯৭১ সালে ওভালে ১০১ রান করেছিল ইংলিশরা।

শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের লিড দাঁড়ায় মাত্র ৪৮ রানে। আর রুটবাহিনীর এই দুর্দশার কারণ অশ্বিন ও অক্ষর। ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসের প্রথম বলেই ওপেনার জ্যাক ক্রলিকে গোল্ডেন ডাক উপহার দেন অক্ষর। এক বল পরেই জনি বেয়ারস্টোকেও ডাক উপহার দেন এই বাঁহাতি স্পিনার। পরে ডম সিবলিকে ৭ রানে বিদায় করেন তিনি।

৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা ইংলিশদের আরও বিপদে ফেলে দেন অশ্বিন। বেন স্টোকসকে টেস্টে ১১বারের মতো নিজের শিকার বানান এই ডানহাতি ক্যারম বোলার। ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করতে থাকা রুট (১৯) বিদায় হন অক্ষরের বলে। এরপর ২ রানের ব্যবধান ওলে পোপ এবং আর্চারকে তুলে নিয়ে ৪০০ উইকেট মাইলফলকে পৌঁছান অশ্বিন।

ভারতীয়দের মধ্যে চতুর্থ বোলার হিসেবে এবং সবমিলিয়ে দ্বিতীয় দ্রুততম সময়ে এই ক্লাবে প্রবেশ করলেন অশ্বিন। অশ্বিনের আগে ৪০০ বা তার বেশি উইকেট শিকার করা ভারতীয় বোলার- অনিল কুম্বলে (৬১৯), কপিল দেব (৪৩৪) এবং হরভজন সিং (৪১৭)। ৪০০ উইকেটের চূড়ায় দ্রুততম সময়ে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে মুরালির পরেই এখন অশ্বিনের নাম শোভা পাচ্ছে। শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি স্পিনার মুরালি ৭২ টেস্টেই ওই উচ্চতায় পৌঁছান। অশ্বিনের লেগেছে ৭৭ টেস্ট।

অশ্বিনের মাইলফলক ছোঁয়ার ম্যাচে রেকর্ড গড়েছেন অক্ষর প্যাটেলও। প্রথমবারের মতো এক টেস্টে ১০ উইকেট পাওয়া এই স্পিনার পুরো ম্যাচে ৭০ রান খরচে তুলে নিয়েছেন ১১ (৬+৫) উইকেট, যা দিনরাতের টেস্টে এখন পর্যন্ত সেরা বোলিং ফিগার। ইংলিশদের শেষ উইকেটটি গেছে আরেক স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দর। অশ্বিন নেন ৪ উইকেট, দুই ইনিংস মিলিয়ে ৯ উইকেট।

এর আগে ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংস শেষ হয় মাত্র ১১২ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

ইংল্যান্ড (১ম ইনিংস) : ১১২ (জ্যাক ক্রলি ৫৩; অক্ষর প্যাটেল ৩৮/৬, অশ্বিন ২৬/৩)

ইংল্যান্ড (দ্বিতীয় ইনিংস) : ৮১ (বেন স্টোকস ২৫; অক্ষর প্যাটেল ৩২/৫, অশ্বিন ৪৮/৪)

ভারত (প্রথম ইনিংস) : ১৪৫ (৬৬; জো রুট ৮/৫, জ্যাক লিচ ৫৪/৪)

ভারত (দ্বিতীয় ইনিংস) : ৪৯/০ (রোহিত শর্মা ২৫)

ফলাফল : ভারত ১০ উইকেটে জয়ি

সিরিজ : ৪ ম্যাচের সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে ভারত।

২৫ ফেব্রুয়ারি : ক্রিকেট খেলার আইন-কানুন সূত্রবদ্ধ হয়

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : আজ বৃহস্পতিবার; ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ; ১২ ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)।

আজকের দিনটি গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জি অনুসারে বছরের ৫৬তম দিন।

এ হিসাবে, বছর শেষ হতে আরও ৩০৯ দিন বাকি রয়েছে।

আজকের দিনে ক্রিকেট খেলার আইন-কানুন সূত্রবদ্ধ হয়।

ঘটনাবলি :
১৩৮ : রোমান সম্রাট হাড্রিয়ান আন্তোনিউস পাইউসকে দত্তক নেন।
৬২৮ : দ্বিতীয় খসরু তাঁর পুত্র দ্বিতীয় কাভাদ কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন।
১৫৮৬ : সম্রাট আকবরের সভাকবি বীরবল নিহত হন।
১৭৫৩ : বৃটিশ চিকিৎসক রিচার্ড হকিস্টি এস্কোরবেট রোগ নিরাময়ের উপায় আবিষ্কার করেন।
১৭৭৪ : ক্রিকেট খেলার আইন-কানুন সূত্রবদ্ধ হয়।
১৮৩৬ : স্যামুয়েল কোল্ট, কোল্ট রিভলবারের প্যাটেন্ট পান।
১৮৪৭ : স্টেট ইউনিভার্সিটি অব আইওয়া প্রতিষ্ঠিত হয়।
১৮৬২ : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম কাগজের মুদ্রা চালু হয়।
১৯০৮ : হাডসন নদীর নিচ দিয়ে প্রথম টানেল খুলে দেওয়া হয়।
১৯১৬ : প্রথম বিশ্বযুদ্ধ : জার্মানরা ফ্রান্সের ফর দুয়ামোঁ নামক দুর্গ দখল করে নেয়।
১৯২৬ : ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কো ফ্রান্সের জেনারেল মনোনিত হন।
১৯৩২ : অ্যাডলফ হিটলার জার্মান নাগরিকত্ব লাভ করেন।
১৯৩৩ : জাপান লীগ অব নেশনস্ পরিত্যাগ করে।
১৯৩৮ : লর্ড হ্যালিফ্যাঙ্ ব্রিটেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হন।
১৯৪৫ : দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ : তুরস্ক জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে।
১৯৪৫ : মার্কিন বিমান টোকিও আক্রমণ করে।
১৯৫৪ : সিরিয়ায় প্রেসিডেন্ট আদিব আল শিশাকলির স্বৈরাচারি সরকারের বিরুদ্ধে গণ-বিদ্রোহ শুরু হয়।
১৯৫৪ : জামাল আবদেল নাসের মিশরের প্রধানমন্ত্রী হন।
১৯৭২ : বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া।
১৯৭৭ : কুমিল্লার ময়নামতিতে ১ হাজার ৩শ বছর আগের স্বর্ণমুদ্রার সন্ধান পাওয়া যায়।
১৯৮৬ : ফিলিপাইনের স্বৈরাচারি শাসক ও ‘আজীবন প্রেসিডেন্ট’ ফার্ডিনান্ড মার্কোস স্বপরিবারে দেশ থেকে পালিয়ে যান।
১৯৮৬ : কোরাজন অ্যাকুইনো ফিলিপাইনের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন।
১৯৯১ : মার্কিন নেতৃত্বাধীন মিত্র বাহিনীর হাতে ২০ হাজার ইরাকি সেনা বন্দি হয়।
১৯৯১ : ন্যাটো জোটের প্রতিদ্বন্দ্বি ওয়ারশো জোটের দেশগুলো এই সামরিক জোটকে বিলুপ্ত ঘোষণা করেন।
১৯৯১ : উপসাগরীয় যুদ্ধ : ইরাকি স্কাড ক্ষেপণাস্ত্র সৌদি আরবের দাহরানে মার্কিন সামরিক ঘাটিতে আঘাত করে ফলে ২৮ জন মার্কিন সেনা নিহত হয়।
১৯৯৪ : হেবরন মসজিদ হত্যাকাণ্ড : পশ্চিম তীরের হেবরন শহরে ইব্রাহিমী মসজিদে গোলাগুলির ঘটনায় ২৯ জন ফিলিস্তিনি নিহত ও ১২৫ জন আহত হন।
২০০৯ : ঢাকার পিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহ সংঘটিত হয়।

জন্ম :
১৬৪৩ : উসমানীয় সুলতান দ্বিতীয় আহমেদ জন্মগ্রহণ করেন (মৃত্যু : ১৬৯৫ খ্রিস্টাব্দ)।
১৬৪৪ : টমাস নিউকমেন, ইংরেজ আবিষ্কারক জন্মগ্রহণ করেন (মৃত্যু : ১৭২৯ খ্রিস্টাব্দ)।
১৭৭৮ : হোজে দে সান মার্টিন, আর্জেন্টাইন জেনারেল এবং পেরুর প্রথম রাষ্ট্রপতি জন্মগ্রহণ করেন (মৃত্যু : ১৮৫০ খ্রিস্টাব্দ)।
১৮৪১ : ফরাসি চিত্রশিল্পী ও ভাস্কর পিয়ের-অগ্যুস্ত রেনোয়া জন্মগ্রহণ করেন।
১৮৪২ : জার্মান লেখক কবি ও নাট্যকার কার্ল মে জন্মগ্রহণ করেন।
১৮৫৫ : অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার জর্জ জন বোনর জন্মগ্রহণ করেন।
১৮৬৬ : ইতালীয় দার্শনিক ও রাজনীতিক বেনেডেটো ক্রকে জন্মগ্রহণ করেন।
১৮৭৩ : ইতালিয়ান মার্কিনি অভিনেতা এনরিকো কারুসো জন্মগ্রহণ করেন।
১৯০৭ : তুর্কি সাংবাদিক, লেখক ও কবি সাবাহাতিন আলী জন্মগ্রহণ করেন।
১৯১৭ : ইংরেজ লেখক, কবি, নাট্যকার ও সমালোচক অ্যান্থনি বার্জেস জন্মগ্রহণ করেন।
১৯২৪ : হিউ হাক্সলি, ইংরেজ-মার্কিন জীববিজ্ঞানি জন্মগ্রহণ করেন (মৃত্যু : ২০১৩ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৪৩ : জর্জ হ্যারিসন, বিংশ শতাব্দীর অত্যন্ত প্রতিভাবান একজন জনপ্রিয় গায়ক এবং গিটারবাদক।
১৯৪৮ : ইতালিয়ান লেখক আলডো বুসি জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৫৩ : স্পেনীয় শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিক হোসে মারিয়া আযনার জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৫৫ : লিয়ান হানলেই, হলিউড অভিনেত্রী জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৭১ : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিনেতা, পরিচালক ও প্রযোজক সেয়ান আস্টিন জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৭৪ : লরি ফর্টিয়েই, মার্কিন অভিনেত্রী জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৭৪ : দিব্যা ভারতী, একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৮১ : পার্ক জি-সুং, একজন দক্ষিণ কোরীয় ফুটবল খেলোয়াড় জন্মগ্র্রহণ করেন।
১৯৮১ : শহীদ কাপুর, বলিউড অভিনেতা জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৮৬ : অলিভার ফেলপস, হ্যারি পটার চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য বিখ্যাত অভিনেতা জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৮৭ : নাটালি ড্রাইফাস, হলিউড অভিনেত্রী জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৯০ : ব্রাজিলিয়ান ফুটবল খেলোয়াড় জেফারসন আল্ভেস অলিভেইরা জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৯৩ : ক্রিকেটার সৌম্য সরকার জন্মগ্রহণ করেন।
১৯৯৭ : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিনেত্রী ইসাবেল ফুহরমান জন্মগ্রহণ করেন।

মৃত্যু :
১৪৯৫ : সুলতান জেম, উসমানীয় রাজনীতিক (জন্ম : ১৪৫৯ খ্রিস্টাব্দ)।
১৬৩৪ : অস্ট্রীয় সাধারণ ও রাজনীতিক আলব্রেশট ভন ওয়ালেন্সটেইন।
১৭১৩ : প্রুশিয়ার রাজা প্রথম ফ্রেডরিক।
১৭২৩ : ইংরেজ স্থপতি ক্রিস্টোফার রেন।
১৮৬৪ : মাকির্ন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি উইলিয়াম হেনরী হ্যারিসনের সহধর্মিনি ও মার্কিন রাষ্ট্রপতি বেনজামিন হ্যারিসনের নানি অ্যানা হ্যারিসন।
১৮৬৬ : ইতালীয় দার্শনিক বেনোদেত্তো ক্রোচে।
১৮৭৪ : ভারতীয় বাঙালি বিচারপতি দ্বারকানাথ মিত্র (জন্ম : ১৮৩৩ খ্রিস্টাব্দ)।
১৮৮৯ : পল রয়টার, জার্মা‌ন-ইংরেজ সাংবাদিক (জন্ম : ১৮১৬ খ্রিস্টাব্দ)।
১৮৯৯ : রয়টার্স সংবাদ সংস্থার জনক পল রয়টার।
১৯৫০ : নোবেল পুরস্কার বিজয়ি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডাক্তার জর্জ রিচার্ডস মিনট।
১৯৫৩ : সের্গে‌ই উইনোগ্রাডস্কি, ইউক্রেনীয়-রুশ অণুজীববিজ্ঞানি ও বাস্তুতন্ত্রবিদ (জন্ম : ১৮৫৬ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৫৭ : সুনির্মল বসু বাঙালি শিশুসাহিত্যিক ও কবি (জন্ম : ২০/০৭/১৯০২ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৬৫ : ফিলিপ বেবিংটন, ব্রিটিশ বিমান বাহিনীর অফিসার (জন্ম : ১৮৯৪ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৬৬ : জেমস ডি নরিস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়ি (জন্ম : ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৭১ : নোবেল পুরস্কার বিজয়ি সুইডিশ রসায়নবিদ থিওডোর সভেডবার্গ।
১৯৭৫ : এলাইজা মুহাম্মদ, মার্কিন ধর্মীয় নেতা (জন্ম : ১৮৯৭ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৮৩ : নাট্যকার টেনেসি উইলিয়াম।
১৯৯৭ : ক্যাল আব্রামস, মার্কিন বেসবল খেলোয়াড় (জন্ম : ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দ)।
১৯৯৯ : নোবেল পুরস্কার বিজয়ি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রসায়নবিদ গ্লেন থিওডোর সিবোর্গ।
২০০৩ : ইতালিয়ান অভিনেতা আলবার্তো সরডি।
২০০৯ : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লেখক ফিলিপ হোসে ফার্মের।
২০১২ : মার্থা‌ স্টুয়ার্ট‌, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিনেত্রী (জন্ম : ১৯২২ খ্রিস্টাব্দ)।
২০১২ : সুইডিশ অভিনেতা ও পরিচালক এরলান্দ জোসেফসন।
২০১৪ : স্প্যানিশ গিটারিস্ট, গীতিকার ও প্রযোজক পাকো ডে লুসিয়া।
২০১৫ : ইউজেন ক্লার্ক, মার্কিন জীববিজ্ঞানি (জন্ম : ১৯২২ খ্রিস্টাব্দ)।
২০১৫ : টেরি গিল, ইংরেজ-অস্ট্রেলীয় অভিনেতা (জন্ম : ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দ)।
২০১৯ : নিখিল সেন, বাংলাদেশের প্রতিথযশা নাট্যকার ও সংস্কৃতিকর্মি (জন্ম : ১৯৩১ খ্রিস্টাব্দ)।

দিবস :
জাতীয় দিবস (কুয়েত)।
সোভিয়েত দখল দিবস (জর্জিয়া)।
বিপ্লব দিবস (সুরিনাম)।

রাকিবের মামলা : ডিভোর্সের কপি নিয়ে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন নাসির-তামিমার

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তাঁর সদ্য বিবাহিত স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন রাকিব হাসান নামের এক ব্যক্তি।

রাকিব নিজেকে তামিমার বর্তমান স্বামী পরিচয় দিলেও ডিভোর্স কপি নিয়ে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন নাসির হোসেন ও তামিমা তাম্মি।

এ সময় সঙ্গে ছিলেন তাঁদের আইনজীবী।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে, রাকিব হাসান ও তামিমা তাম্মির ডিভোর্স হয়ে গেছে ২০১৭ সালেই। আর তাঁদের পরিবারও বিষয়টি জানতো।

তামিমা আরও বলছেন, নাসির হোসেন লুকিয়ে বিয়ে করেন নি। তিনি ঘটা করেই বিয়ে করেছেন এবং বিয়ের এক বছর আগে থেকেই আমার (তামিমা তাম্মি) ছবি নাসির (নাসির হোসেন) তাঁর সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে দিয়ে আসছেন।

ওদিকে রাকিব হাসানের ওই মামলার পর এর তদন্তের ভার দেওয়া হয়েছে পিবিআইকে (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন)।

রাকিবের জবানবন্দি শুনে ঢাকার মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীম বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে এমন আদেশ দেন।

এ সময় রাকিবের পক্ষে আইনজীবী হিসেবে ছিলেন ইসরাত হাসান।

আদালতটির পেশকার হেলাল বাংলা কাগজকে বলেন, ‘আগের বিয়ে চলমান থাকা অবস্থায় অন্যত্র বিয়ে, অন্যের স্ত্রীকে প্রলুব্ধ করে নিয়ে যাওয়ায় মানহানি এবং ব্যাভিচারের অভিযোগ করা হয়েছে মামলায়। মামলাটি তদন্ত করে আদালত ৩০ মার্চের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলেছে।’

মামলার আর্জিতে তামিমার বয়স ২৯ এবং রাকিবের বয়স ৩২ এবং ক্রিকেটার নাসিরের বয়স ৩০ বছর লেখা হয়েছে।

ওই মামলার পর পর রাজধানীর বনানীতে সংবাদ সম্মেলন করেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তামিমা সুলতানা তাম্মি।

সংবাদ সম্মেলনে তামিমা সুলতানা তাম্মি বলেন, ‘মিস্টার রাকিব হাসান উনি যে বলেছেন, যে আমি তালাক না দিয়ে তাঁকে (নাসির হোসেন) বিয়ে করেছি, এটা সম্পূর্ণই মিথ্যে কথা। আমি তালাকটার জন্য অ্যাপ্লাই করি টু থাউজেন্ড সিক্সটিন (২০১৬ সাল), আর সেটার অ্যাপ্রুভ আসে টু থাউজেন্ড সেভেন্টিনে (২০১৭ সালে)। আর সম্পূর্ণ আইনি সবকিছু মিলেই ডিভোর্সটা হয়। এটা তাঁদের পরিবারপর্ব এবং তিনি সবাই এ সম্পর্কে জানতেন। তো উনি যেটা করছেন, এটা কেনো করছেন, সেটা আপনাদের সবারই (সাংবাদিক) হয়তো বোঝা হয়ে গেছে। তো সেখান থেকে আমি বলবো, তো (রাকিব) যতোগুলো কথা, যতোগুলো বলেছেন সব মিথ্যে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তখন ক্রিকেটার নাসির হোসেন বলেন, আমরা কেস হ্যান্ডেল করার জন্য প্রস্তুত।

‘আপনারা প্লিজ সত্যটা জেনে নিউজ করেন। কারণ আজকে তামিমার নামে হচ্ছে, পরে হয়তো আপনার বোনের নামেও হতে পারে।’

‘আমি সব জানি, যে তামিমার বিয়ে হয়েছিলো, বাচ্চা আছে, ডিভোর্স হয়েছিলো। কিন্তু বিয়ের পর নানা কথা শোনার পর আমি তামিমার কাছ থেকে এক সেকেন্ডের জন্যও আলাদা হই নি। কারণ তামিমা তো যে কোনও ডিসিশান নিয়ে নিতে পারতো।’

এ সময় নাসির-তামিমার আইনজীবী বলেন, আমরা ডকুমেন্টসহ আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই যাবো।

তামিমা পেশায় একজন কেবিন ক্রু, একটি বিদেশি এয়ারলাইন্সে কাজ করেন। পেশাগত দায়িত্বের অংশ হিসেবে গতবছর মার্চে সৌদি আরবে গিয়ে তিনি লকডাউনে আটকা পড়েন।

তবে ফোন ও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ ছিলো বলে রাকিবের ভাষ্য।

রাকিব বলছেন, চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও নাসিরের বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সেখান থেকেই বিষয়টি তিনি জানতে পারেন।

দেশপ্রেম : সাকিব না খেললেও মোস্তাফিজ খেলবেন টেস্ট

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) তরফ থেকে বিদেশি লিগে খেলার ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারটা খেলোয়াড়দের ওপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

এমনকি জাতীয় দলের খেলা থাকলেও তাঁদের জোর করে খেলানো হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

এমন অবস্থায় সাকিব আল হাসান দেশের খেলা না খেলে আইপিএলে মনোযোগি হলেও মোস্তাফিজুর রহমান বলছেন ভিন্ন কথা।

তিনি বলছেন, দেশপ্রেমের কারণে তিনি আইপিএলে নয়, দেশের জন্যই খেলতে চান।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিসিবি একাডেমিতে সংবাদমাধ্যমকে ফিজ বলেন, ‘আমার কাছে সবার আগে দেশের খেলা। শ্রীলঙ্কা টেস্টের জন্য ডাক পেলে আমি টেস্ট খেলবো।’

‘দেশপ্রেম আগে।’