Category: আইন-শৃঙ্খলা, প্রতিরক্ষা, গোয়েন্দা সংস্থা এবং অন্যান্য বাহিনি

এস আলমের বিদ্যুৎকেন্দ্রে হতাহতের ঘটনা তদন্তে কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; চট্টগ্রাম : বাঁশখালীতে এস আলম গ্রুপের নির্মাণাধিন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে ৫ জনের মৃত্যুসহ হতাহতের ঘটনা তদন্তে ৪ সদস্যের কমিটি করেছে জেলা প্রশাসন।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুমনি আক্তারকে কমিটির প্রধান করা হয়েছে বলে বাংলাকাগজকে নিশ্চিত করেছেন বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) সাইদুজ্জামান চৌধুরী। তিনি বলেন, কমিটিকে ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

কমিটিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার একজন, কলকারখানা পরিদর্শক বিভাগের একজন এবং বিদ্যুৎ বিভাগের একজন প্রতিনিধি রয়েছেন।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনার পর বিদ্যুৎকেন্দ্রের ভেতরে শ্রমিক প্রতিনিধি, পুলিশ, জেলা প্রশাসন এবং বিদ্যুৎকেন্দ্র ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে বৈঠক হয়।

এতে চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি, জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান এবং জেলা পুলিশ সুপার রাশিদুল হকসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় শ্রমিকদের দাবি মেনে নেওয়া হবে বলে বিদ্যুৎকেন্দ্র কর্তৃপক্ষ আশ্বাস দেয়।

উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা জানান, বৈঠকে নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ৩ লাখ টাকা করে এবং আহত প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে এস আলম গ্রুপের পক্ষ থেকে।

‘এ ছাড়া আহতদের চিকিৎসা ব্যয়ও এস আলমের পক্ষ থেকে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।’

মামুনুলের কথিত শ্বশুরকে নোটিশদাতা আ.লীগ নেতাদের হত্যার হুমকি!

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; কাজলা দিদি, ফরিদপুর : হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের সঙ্গে হোটেলে অবস্থান করা জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দেওয়ায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় আলফাডাঙ্গা উপজেলার ২ নম্বর গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোনায়েম খান শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) আলফাডাঙ্গা থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছেন।

জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবা বির মুক্তিযোদ্ধা ওলিয়ার রহমান ২ নম্বর গোপালপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। হেফাজতে ইসলামের রাজনীতিতে জড়িতদের সঙ্গে আত্মীয়ের সম্পর্ক গড়ার বিষয়টি গোপন রাখায় কেনো তাঁকে দলের কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হবে না, জানতে চেয়ে ১২ এপ্রিল কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ।

সাধারণ ডায়েরিতে মোনায়েম খান উল্লেখ করেন, ওলিয়ার রহমানের পরিবারবর্গ হেফাজতের সঙ্গে জড়িত থাকায় আওয়ামী লীগের কর্মপরিকল্পনা ফাঁস হওয়ার আশঙ্কা থাকায় ১২ এপ্রিল তাঁকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়।

‘নোটিশ দেওয়ার পরদিন ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে শুরু করে ৭টার মধ্যে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা (০০৩৯৩২৯১০৭৪১৮০, ৬০১১১৬৭০৪৮৪০, ৩৭০৫৭৭৯ নম্বর থেকে আমাকে কল করে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে এবং হত্যার হুমকি দেয়।’

‘এ ছাড়া একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিনের মুঠোফোন নম্বরে (৩১৩২৬৫৫ নম্বর থেকে) ফোন করে মামুনুল হক পরিচয় দিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে এবং হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় আইনের সাহায্য চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছি আমি।’

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন বাংলাকাগজকে বলেন, ‘ওলিয়ার রহমানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ায় আমার ব্যক্তিগত মোবাইলে মামুনুল হক পরিচয় দিয়ে ফোন দেন। আমাকে অশ্লীল গালিগালাজ করা হয় এবং হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।’

‘আমাকে হুমকি দিয়ে বলা হয়, তোর মনে যা খেতে চায়; খেয়ে নে, আর বেশি দিন বাঁচতে পারবি না।’

আলফাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওয়াহিদুজ্জামান বাংলাকাগজকে বলেন, হুমকি দেওয়ার ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোনায়েম খান। বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি।

এর আগে ১২ এপ্রিল কারণ দর্শানোর নোটিশে বলা হয়, আপনি ওলিয়ার রহমান, গোপালপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। আপনার বড় জামাতা মো. হাবিবুর রহমান, মেজ জামাতা অর্থাৎ জান্নাত আরা ঝর্ণার সাবেক স্বামি মো. জাফর শহিদুল ইসলাম, সর্বাধিক সমালোচিত আপনার মেজ মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণার কথিত স্বামি মো. মামুনুল হকসহ সবাই উগ্রপন্থী ইসলামী সংগঠনের (হেফাজতে ইসলাম) সঙ্গে জড়িত। আপনার মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণা অবৈধ কার্যকলাপে লিপ্ত। এমনকি আরও জানা যায় যে, আপনার স্ত্রীও জামায়াতপন্থী।’

নোটিশে আরও বলা হয়, ওয়ালিয়ার রহমানকে কেনো ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে বহিষ্কার করা হবে না, তার পক্ষে আগামি ৭ কর্মদিবসের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব দেওয়ার অনুরোধ করা হলো।

এ বিষয়ে জানতে গোপালপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওলিয়ার রহমানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁর মুঠোফোন নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়।

মুভমেন্ট পাস পেতে ১৬ কোটি হিট

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : লকডাউনের মধ্যে চলাচলের জন্য পুলিশের ‘মুভমেন্ট পাস’ পেতে সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইটে বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) সকাল ৯টা পর্যন্ত ১৫ কোটি ৯৯ লাখ ২২ হাজার ৬৫ বার হিট বা নক করা হয়েছে।

অর্থাৎ প্রতি মিনিটে হিট হয়েছে ১৪ হাজার ২৬টি। পুলিশ সদর দপ্তর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত ১৩ এপ্রিল কঠোর লকডাউন শুরুর আগের দিন সকাল ১১টায় মুভমেন্ট পাসের ওয়েবসাইটটি উদ্বোধন করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ।

অর্থাৎ গত ৪৬ ঘণ্টায় ওয়েবসাইটে ঢুকে মুভমেন্ট পাসের জন্য নিবন্ধন করেছেন ৪ লাখ ৯৭৭ জন। আর পুলিশ পাস ইস্যু করেছে ৩ লাখ ১৬ হাজার ৮০১টি।

আইজিপি : কাউকে ঘরের বাইরে দেখতে চাই না

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘরের বাইরে বের না হতে বলেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

তিনি বলেছেন, বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে আপনাদের ঘরের বাইরে দেখতে চাই না।

‘জরুরি প্রয়োজনে বাইরে গেলে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে নিজেকে স্যানিটাইজ করবেন। আপনার মাধ্যমে যেনো আপনার প্রিয়জন করোনায় সংক্রমিত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।’

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে রাজারবাগ পুলিশ অডিটেরিয়ামে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধকল্পে বিধি-নিষেধ চলাকালে জরুরি প্রয়োজনে বাইরে যেতে ‘মুভমেন্ট পাস’ অ্যাপসের উদ্বোধনের সময় আইজিপি এসব কথা বলেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, কেউ রাস্তায় জটলা পাকাবেন না, হাতিরঝিলে বা অন্য কোথায় গিয়ে তরুণ-তরুণিদের আড্ডা না দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। বাজার, করোনার টিকার তারিখ থাকলে কিংবা অতিপ্রয়োজনীয় কাজ থাকলে বের হওয়া যাবে। এমনকি অ্যাম্বুলেন্সে রোগি চলাচলের প্রয়োজন হলেও মুভমেন্ট পাস লাগবে।

এক ঘণ্টায় ৫ হাজার মুভমেন্ট পাসের আবেদন জমা পড়েছে। মিথ্যা তথ্য দিয়ে মুভমেন্ট পাসের আবেদন করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঢাকার বাইরে গেলে মুভমেন্ট পাস লাগবে। এ ছাড়া একটি মোবাইল নম্বর ও একটি গাড়ির নম্বর দিয়ে একাধিক পাস নেওয়া যাবে না। আশা করছি, এমন মহামারির সময়ে কেউ মিথ্য বলে পাস নেবেন না।

সাম্প্রতিক সময়ে সাংবাদিকদের ওপরে হামলাকারিদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে আইজিপি বলেন, আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবকে আর্থিক সহযোগিতা করেছি। দু’জন সাংবাদিককে বলেছি মামলা করতে। আমরা তাঁদের সহযোগিতা করেছি।

থানা পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা জাতীয় কোনও ইস্যু না। স্থানীয় প্রশাসন মনে করেছে তাঁদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানো প্রয়োজন, তাই করা হয়েছে।

যেভাবে আবেদন করা যাবে মুভমেন্ট পাসের : করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চলমান লকডাউনে মানুষের অনিয়ন্ত্রিত ও অপ্রয়োজনীয় চলাচল রোধে এবং জরুরি বিশেষ প্রয়োজনে যাতায়াত নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ পুলিশে চালু হয়েছে ‘MOVEMENT PASS’ অ্যাপস। দেশের যে কোনও নাগরিক এ অ্যাপসটির মাধ্যমে কয়েকটি তথ্য দিয়ে খুব সহজইে এ পাস সংগ্রহ করতে পারবেন। এ অ্যাপসটি ব্যবহার করলে একদিকে যেমন জরুরি প্রয়োজনে নাগরিকদের চলাচল নিশ্চিত করা যাবে, অন্যদিকে মানুষের অপ্রয়োজনীয় ও অনিয়ন্ত্রিত চলাচলও বন্ধ করা যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

কঠোর লকডাউনে জরুরি প্রয়োজন বাসা থেকে বের হয়ে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতেই লাগবে মুভমেন্ট পাস। যে কেউ তাঁর প্রয়োজেন বিষয় জানিয়ে এ অ্যাপস আবেদন করলেও যৌক্তিক কারণে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যাতায়াত করতে পাওয়া যাবে পাস।

জানা গেছে, মুদি দোকানে কেনাকাটা, কাঁচা বাজার, ওষুধপত্র, চিকিৎসা, চাকরি, কৃষিকাজ, পণ্য পরিবহন ও সরবরাহ, ত্রাণ বিতরণ, পাইকারি/খুচরা ক্রয় পর্যটন, মরদেহ সৎকার, ব্যবসা ও অন্যান্য ক্যাটাগরিতে দেওয়া হবে এ পাস। যাঁদের বাইরে চলাফেরা প্রয়োজন কিন্তু কোনও ক্যাটাগরিতেই পড়েন না তাদের ‘অন্যান্য’ ক্যাটাগরিতে পাস দেওয়ার বিষয়ে বিবেচনা করা হবে।

সড়কে কোথাও চলাচলের কারণে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হলে এ পাস দেখালেই তার পরিচয় নিশ্চিত হয়ে যেতে দেওয়া হবে।

এ ছাড়া কোনও ব্যক্তির বাবা-মা/পরিবারের কেউ যদি অন্য জেলায় মারা যান, তবে তিনি অ্যাপের মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট কারণ দেখিয়ে পাসের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আবেদন যৌক্তিক হলে মুহূর্তেই তিনি পাস পেয়ে যাবেন।

আবেদনের নিয়মাবলি : https://movementpass.police.gov.bd/ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে পাসের জন্য আবেদন করতে হবে।

শুরুতেই একটি সক্রিয় মোবাইল ফোন নম্বর দিতে হবে। আবেদনকারি কোথা থেকে কোথায় যাবেন, তা জানতে চাওয়া হবে। সেসব তথ্য ধাপে ধাপে দিতে হবে। এরপর আবেদনকারির একটি ছবি আপলোড করে ফর্মটি জমা দিতে হবে।

জমা দেওয়া ফর্মে আবেদনকারি প্রদত্ত তথ্যাবালীর ভিত্তিতে মুভমেন্ট পাস ইস্যু করা হবে। ওয়েবসাইট থেকেই পাসটি ডাউনলোড করে সংগ্রহ করা যাবে। চলাচলের সময় কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারকে পাস প্রদর্শন করতে হবে।

ঢাকায় ভারতীয় সেনাপ্রধান

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাংলা কাগজ : ঢাকা পৌঁছেছেন ভারতের সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরভানে। বৃহস্পতিবার তিনি (৮ এপ্রিল) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের আমন্ত্রণে ৫ দিনের সফরে তিনি ঢাকা এসেছেন।

মনোজ মুকুন্দ নরভানের সঙ্গে রয়েছেন তাঁর স্ত্রী শ্রীমতী বীণা নরভানে এবং ২ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল।

ভারতীয় হাইকমিশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভারতীয় সেনাপ্রধান ঢাকা সফরকালে বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও ভারপ্রাপ্ত বিমান বাহিনি প্রধান এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন সামরিক ঘাঁটিও পরিদর্শন করবেন।

বাংলাদেশ আসার পর ইতোমধ্যে ঢাকা সেনানিবাসের শিখা অনির্বাণের বেদিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগকারি বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন ভারতীয় সেনাপ্রধান।

এ সফরে তিনি জাতিসংঘের শান্তির সমর্থনে অপারেশন সম্পর্কিত সেমিনারে অভিজ্ঞতা বিনিময় করবেন। যৌথ সামরিক অনুশীলন-শান্তির অগ্রসেনার সমাপনি অনুশীলন, হার্ডওয়্যার প্রদর্শনি এবং সমাপনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন।

এই সফর দু’দেশের সশস্ত্র বাহিনির মধ্যে বিদ্যমান ঘনিষ্ঠ ও ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরও জোরদার করবে বলে জানায় ভারতীয় হাইকমিশন।

লক্ষ্মীপুর : বাইসাইকেল পেলেন গ্রাম পুলিশের সদস্যরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; রবিউল ইসলাম খান, লক্ষ্মীপুর : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ বা মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে গ্রাম পুলিশের সদস্যরা পেলেন বাইসাইকেল। লক্ষ্মীপুরে এসব বাইসাইকেল বিতরণ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব বাইসাইকেল বিতরণ অনুষ্ঠান হয়েছে ৭ এপ্রিল (বুধবার)।

সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ওই বাইসাইকেল প্রদান অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ মাসুমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) আনোয়ার হোছাইন আকন্দ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ সফিউজ্জামান ভৃঁইয়া, উপজেলা চেয়ারম্যান এ কে এম সালাহ উদ্দিন টিপু, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মামুনুর রশিদ এবং উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদ আক্তার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বাইসাইকেল গ্রাম পুলিশের সদস্যদের হাতে তুলে দেওয়ার আগে আলোচনাও সভা হয়।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সচিবেরাও উপস্থিত ছিলেন।

মামুনুলের নারিকাণ্ড : নারায়ণগঞ্জের ওসির পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বদলি

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলা কাগজ; নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারিসহ অবরুদ্ধের পর সহিংস ঘটনা সৃষ্টির কারণে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহারের পর একই ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টি এম মোশাররফ হোসেনকেও বদলি করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম এই বদলির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে জায়েদুল আলম বলেন, হেফাজতের মামুনুল হক ইস্যুতে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে রবিবার (৪ এপ্রিল) রাতে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে। একই ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টি এম মোশাররফ হোসেনকে খুলনা রেঞ্জে বদলি করা হয়েছে।

৩ এপ্রিল বিকেলে সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর কক্ষে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক স্ত্রী ছাড়া অন্য কোনও এক নারি নিয়ে অবস্থান করছেন, এমন খবরে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পরে হোটেল কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে মামুনুল হকের কাছে বিষয়টি জানতে চান কিছু গণমাধ্যমকর্মি। এবং ওই সময় সাধারণ মানুষ অন্য নারির বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে তাকে অবরুদ্ধ করেন। এ ঘটনার পর পুলিশ মামুনুল হককে অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে উদ্ধার করেন এবং হেফাজতে ইসলাম কর্মি-সমর্থকদের কাছে তাকে হস্তান্তর করেন। কিন্তু এরপরও নারায়ণঞ্জের হেফাজতে ইসলামের কর্মি-সমর্থকরা এলাকায় ভাঙচুর চালায় এবং অগ্নিসংযোগের মতো ঘটনাও ঘটায়। তবে কোনও স্থাপনায় অগ্নিসংযোগ না করলেও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নারায়ণগঞ্জের কার্যালয়ে ভাঙচুর চালান হেফাজতের সমর্থনকারিরা। এ সময় তারা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এসে নানা উস্কানিমূলক স্লোগানও দেন। এ সময় হেফাজতের সমর্থনকারিরা সহিংস হয়ে উঠেছিলেন। আর এই ঘটনায় নারায়ণগঞ্জের ওসির পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপারও বদলি হলেন।

টেক্সাসে একই পরিবারের ৬ বাংলাদেশির মরদেহ উদ্ধার

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলা কাগজ; শাফিনুর রহমান, যুক্তরাষ্ট্র : যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে ৬ বাংলাদেশির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় বাংলাদেশি এবং বাংলা ভাষাভাষি কমিউনিটিতে ব্যাপক চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে।

টেক্সাসের স্থানীয় সময় সোমবার (৫ এপ্রিল) এলেন শহরের একটি বাড়ি থেকে পুলিশ ওই ৬ মরদেহ উদ্ধার করে।

স্থানীয় বাংলাদেশি কমিউনিটি সূত্রে জানা গেছে, নিহত প্রত্যেকেই বাংলাদেশি। উদ্ধার হওয়া মৃত ব্যক্তিরা হলেন সিটি ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট শাম তৌহিদ, তাঁর স্ত্রী মিসেস নীনা, তাঁদের দুই ছেলে ও এক মেয়ে এবং শাম তৌহিদের বৃদ্ধা মা।

পুলিশের মুখপাত্র সার্জেন্ট জন ফেল্টি বলেন, দুই ভাই নিজেরা ঠিক করেছিলো যে তারা সুইসাইড করবে এবং সেইসঙ্গে পুরো পরিবারকে মেরে ফেলবে। সে অনুযায়ি, তারা হত্যাযজ্ঞ সম্পন্ন করে থাকতে পারে।

‘দুই ভাইয়ের একজন যার বয়স ১৯ বছর সে সোশ্যাল মিডিয়ার একটি দীর্ঘ সুইসাইড নোট রেখে গেছে। তাতে সে নিজেকে মানসিক বিকারগ্রস্ত বলে উল্লেখ করেছে।’

তবে কমিউনিটির লোকজন বলছেন, ওই ছেলে দুটো অনেক মেধাবি ছিলেন এবং তাঁদের কাছে কখনোই ছেলো দুটোকে কখনোই মানসিক বিকারগ্রস্থ বলে মনে হয় নি।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, গত শনিবার (৩ এপ্রিল) তাঁদের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার কারণ বের করতে তদন্ত করছে পুলিশ।

বাংলাদেশকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১৫ ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; মহসিন মিলন, বেনাপোল : ভারতীয় সেনাবাহিনী বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১৫টি ঘোড়া উপহার হিসেবে দিয়েছে।

রবিবার (৪ এপ্রিল) বিকেলে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা নো-ম্যানস ল্যান্ডে ঘোড়াগুলো বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কাছে হস্তান্তর করেন।

উপহারের ঘোড়া হস্তান্তরের সময়বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, যশোর সেনানিবাসের কর্নেল আনোয়ার হোসেন ও ভারতের পক্ষে ছিলেন কলকাতার আর ভিসি ইউনিটের কর্নেল আর কে সাজেত।

এ সময় আরও ছিলেন ভারতের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জে এস সিমা ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেজর ফাহিম তালহা।

এর আগে গত বছরের ১০ নভেম্বর বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত সরকার বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত আরও ২০টি ঘোড়া ও ১০টি কুকুর উপহার দিয়েছিলো।

দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্ব ও সোহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারে ভারত সরকার বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এ ধরনের ঘোড়া ও কুকুর উপহার দিয়ে থাকে। তারইঅংশ হিসেবে ১৫টি ঘোড়া উপহার দেওয়া হলো।

বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ঘোড়া উপহার পাওয়ার বিষয়টি বাংলা কাগজকে নিশ্চিত করেছেন বেনাপোল আইসিপি বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার সুবেদার আব্দুল আওয়াল।

ঘোড়াগুলোর ঢাকার সাভার সেনানিবাসের উদ্দেশে আনা হয়েছে।

২ চোর আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; ইমদাদুল হক, পাইকগাছা (খুলনা) : পাইকগাছা থানা পুলিশ গোপন সংবাদেরভিত্তিতে রাড়ুলী থেকে চোরাই আলম সাধুসহ ২ চোর আটক করেছে।

এ ঘটনায় আলম সাধুর মালিক কয়রা থানার গড় আমাদী গ্ৰামের মনিরুল ইসলাম বাদি হয়ে পাইকগাছা থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

জানা গেছে, কয়রা থানার গড় আমাদী গ্ৰামের জনৈক মনিরুল ইসলামের আলমসাধু কয়রা থানার ইসলামপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম (২৯) ও জুয়েল সানা (৩৬) নামে দুই চোর বৃহস্পতিবার (পহেলা এপ্রিল) রাতে চুরি করে পালিয়ে যাওয়ার সময় পাইকগাছা থানার রাড়ুলী শষ্টীতোলা বাজার থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে এ বিষয়টি জানতে পারেন পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এজাজ শফী। তিনি প্রাপ্ত গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চোর ধরতে রাড়ুলী পুলিশ ফাঁড়িকে নির্দেশ প্রদান করেন।

এ ঘটনায় আলম সাধুর মালিক মনিরুল ইসলাম বাদি পাইকগাছা থানায় মামলা দায়ের করেছে। যার নম্বর : ১ তারিখ : ১/৪/২১ খ্রিস্টাব্দ।

সচেতনতা বৃদ্ধি : রাঙামাটিতে মোবাইল কোর্টের অভিযান অব্যাহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলা কাগজ; শহিদুল ইসলাম হৃদয়, রাঙামাটি : রাঙামাটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ও সরকারের নতুন ১৮ দফা নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন। এরইঅংশ হিসেবে শুক্রবার (২ এপ্রিল) সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট লাইলাতুল হোসেনের নেতৃত্বে শহরের বনরুপাতে মোবাইল কোর্টের অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানে পেশকার নজরুল ইসলামসহ পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় ৬ জনকে মোট ২ হাজার ৭শত টাকা জরিমানা করা হয়।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট লাইলাতুল হোসেন বাংলা কাগজকে বলেন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলার করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। আমরা মাইকিং করছি, গণপরিবহনে অতিরিক্ত যাত্রী না উঠা এবং যাত্রিদের থেকে যাতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় না করা হয় এবং দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে যেনো সুরক্ষা সামগ্রি ব্যবহার করা হয়, সেজন্য আমরা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি।

তিনি বলেন, ‘রাঙামাটিতে বেশিরভাগ মানুষই মাস্ক ব্যবহার করেন। এখানকার মানুষ খুবই সচেতন। তারপরও যাঁরা মাস্ক পরছেন না; তাঁদেরকে আমরা সচেতন করার উদ্যোগ নিয়েছি।’

‘আমাদের এ মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।’

করোনা : চান্দিনায় ৩ বিয়ের অনুষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলা কাগজ; চান্দিনা : কুমিল্লার চান্দিনায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যে বিয়ের আয়োজন করায় ৩টি অনুষ্ঠানে অভিযান চালিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার (২ এপ্রিল) দুপুরে চান্দিনা উপজেলায় ওই ৩ বিয়ের অনুষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে ২০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়।

এ সময় উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিভীষণ কান্তি দাশের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতে উপস্থিত ছিলেন চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসউদ্দিন মোহাম্মদ ইলিয়াছ।

অভিযানে চান্দিনা থানা সংলগ্ন কুটুম্ববাড়ি কমিউনিটি সেন্টারের মালিককে ৫ হাজার, পৌর আধুনিক কমিউনিটি সেন্টারের ইজারাদারকে ৫ হাজার এবং পৌরসভার ছায়কোট এলাকার একটি বিবাহোত্তর বউভাত অনুষ্ঠানে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

বিভীষণ কান্তি দাশ বাংলা কাগজকে বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধিতে সব ধরনের সামাজিক ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান সীমিত করার নির্দেশনা থাকলেও নির্দেশনা অমান্য করে দুটি কমিউনিটি সেন্টার বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য ভাড়া দেওয়ায় তাঁদেরকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

অপরদিকে ছায়কোট এলাকায় হাজারও লোকের আয়োজনে বিবাহোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করায় বরের পিতাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।